বর্ধমানে রাজ্য হস্তশিল্প মেলার উদ্বোধন করলেন মন্ত্রী রবীরঞ্জন চট্টোপাধ্যায়


বুধবার,২৮/০১/২০১৫
603

মোল্লা জসিমউদ্দিন, মঙ্গলকোট, বর্ধমানঃ সম্প্রতি বর্ধমান শহরের উৎসব ময়দানে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য হস্ত শিল্প মেলার শুভ উদঘাটন করলেন বর্ধমান দক্ষীন কেন্দ্রের বিধায়ক এবং সেই সাথে রাজ্য সরকারের মন্ত্রী রবীরঞ্জন চট্টোপাধ্যায় । অন্যান্য অতিথিদের মধ্যে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ, পরিষদীয় সচিব উজ্বল প্রামানিক, জেলাসভাধিপতি দেবু টুডু উপস্থিত ছিলেন। তবে জেলা শাসক সৌমিত্র মোহন, বর্ধমান পৌরপিতা স্বরুপ দত্তের নাম থাকলেও, দেখা যায়নি। রাজ্য হস্তশিল্প মেলা হিসাবে এটি তৃতীয় বর্ষে পড়ল। আগামী ৮ ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত বেলা ১ টা থেকে রাত্রী ৯ টা অবধী হস্ত শিল্প মেলাটি চলবে। আয়োজক হিসাবে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের ক্ষুদ্র, ছোট ও মাঝারী উদ্যোগ এবং বস্ত্র দপ্তর রয়েছে বাংলার প্রধান কুড়িটি নদীর নামকরণে জেলা ভিত্তিক ষ্ট্রল রয়েছে। যেমন উত্তর ২৪ পরগনার ইছামতি, বর্ধমানে অজয়, পশ্চিম মেদিনীপুরের কংসাবতী, বেত, বাঁশ, খড়, তালপাতা , শোলা, ডোকরা, কার্ড জাতীয় সামগ্রী পাওয়া যাচ্ছে হস্ত শিল্প মেলায়। দুপুর ১২ টা নাগাদ শিল্পীদের তৈরী উত্তরীয় দিয়ে বরণ করা হয় অতিথিদের। উদ্বোধন সঙ্গীত পরিবেশন করেন শ্বেতা মজুমদার। স্বাগত ভাষণে বস্ত্র দপ্তরের সহকারী ডিরেক্টার সুবলচন্দ্র পাঁজা মেলার সহযোগীদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। উদ্বোধক মন্ত্রী রবীরঞ্জন চট্টোপাধ্যায় তাঁর সংক্ষিপ্ত বক্তব্য ভাষণে জানান – গ্রামীণ ছোট শিল্পকে গুরুত্ব না দিলে রাজ্য বা দেশে এগিয়ে যেতে পারে না। যদিও উন্নয়নশীল দেশে বড় শিল্প আর্থিক ভিক্তিকে মজবুত করে। সামগ্রিক উন্নয়ন করতে গেলে কুটীর শিল্পকে প্রাধান্য দিতেই হবে। স্বদেশী আন্দোলনে তাই রবীন্দ্রনাথ লিখেছিলেন – বাংলার মাটি বাংলার জল… । প্রধান অতিথি মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ রবীবাবুকে ‘ স্যার’ সুচক সম্মান জানিয়ে বলেন – কর্মসংস্থানের সুযোগ সব চাইতে বেশি হস্ত শিল্পে। নুতন সরকার বর্ধমানের ৩৪ হাজার শিল্পীকে পরিচয়পত্র দিয়েছে। সামগ্রিক বাংলায় সংখ্যাটা ৫ লাখ ৬৬ হাজার। ২০১২ – ‘১৩ বর্ষে ২ কোটি ৮৮ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা বিক্রি হয়েছিল এবং অংশগ্রহণে ছিল ৬২৫ জন শিল্পী। ২০১৩ – ‘১৪ বর্ষে বিক্রি হয় ২ কোটি ৯৫ হাজার এবং ৬৩৫ জন শিল্পী অংশগ্রহণ করে থাকে। এবার ৬৫০ জন হস্ত শিল্পী এসেছেন। তাদের জিনিশপত্রের পরিবহণ খরচ এবং প্রতিদিন খাওয়ার খরচ সরকারের তরফে দেওয়া হচ্ছে। মেলায় ষ্টল ভাড়া লাগছে না বলে জানান স্বপন বাবু। অনুষ্ঠান শেষে দেখা গেল অধ্যাপক রবীরঞ্জন চট্টোপাধ্যায়কে। শতাধিক গুণমুগ্ধ ছাত্র তাদের ‘ স্যারের’ কাছে প্রণাম করে আশীবাদ নিচ্ছে।

Loading...

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

    জানা অজানা

    সাহিত্য / কবিতা

    সম্পাদকীয়


    ফেসবুক আপডেট