ইন্দিরা আবাস যোজনায় বীরভূম শূন্য


বুধবার,১৮/০২/২০১৫
427

খায়রুল আনাম, বোলপুর, বীরভূমঃ চলতি আর্থিক বছর অর্থাৎ ২০১৪-‘১৫ আর্থিক বছর প্রায় শেষের দিকে। অথচ বীরভূম জেলায় ইন্দিরা আবাস যোজনার কাজে কোনও অগ্রগতি দেখাতে পারলো না জেলা প্রশাসন। রাজ্যের অন্য কয়েকটি জেলার সাথেই ইন্দিরা আবাস যোজনার কাজ শেষ করতে না পেরে ‘ শূন্য ‘ পেয়েছে এই জেলা। অথচ সরকারি প্রকল্প – পরিকল্পনা রূপায়নের ক্ষেত্রে জেলার সাফল্য নিয়ে বাজনা বেজেই চলেছে। সারা রাজ্য ইন্দিরা আবাস যোজনায় ৩ লক্ষ ৫৮ হাজার ৪৫৮ টি বাড়ী অনুমোদন পায়। তার মধ্যে মাত্র ২ হাজার ৪৪৭ টি বাড়ীর কাজ শেষ হয়েছে বলে সরকারী সূত্রেই জানা গিয়েছে। সরকারি হিসাবে ‘ হাউস কমপ্লিটেড ‘ -র স্থানে জেলাগুলির নাম উল্লেখ করে উন্নয়নের যে খতিয়ান তুলে ধরা হয়েছে তাতে তার পরিসংখ্যান দেওয়া হয়েছে। যে জেলাগুলির নামের পাশে ‘ ০ ‘ অর্থাৎ শূন্য লেখা হয়েছে তারমধ্যে বীরভূম জেলা অন্যতম। রাজ্যের অন্য জেলাগুলি শূন্য পেয়েছে সেই তালিকায় নাম রয়েছে দার্জিলিং গোর্খা হিল কাউন্সিল – সহ দক্ষিণ ২৪ পরগণা, বাঁকুড়া, বর্ধমান, কোচবিহার, হাওড়া, জলপাইগুড়ি, পশ্চিম মেদিনীপুর ও শিলিগুড়ি। বীরভূম জেলায় ইন্দিরা আবাস যোজনায় ২০ হাজার ৯৫৬ টি বাড়ী তৈরীর অনুমোদন পাওয়া গিয়েছে। সেখানে একটিও বাড়ী তৈরীর কাজ সম্পূর্ণ না হওয়ায় জেলা প্রশাসনের কাজকর্ম নিয়েই প্রশ্ন উঠে গিয়েছে।
ইন্দিরা আবাস যোজনায় বাড়ী তৈরীর জন্য টাকা দেওয়া হয় তিন দফায়। প্রথম দফায় ২৫ শতাংশ টাকা দেওয়া হয়। সেই টাকার কাজ শেষ হলে দ্বিতীয় দফায় ৬০ শতাংশ টাকা দেওয়া হয়। সেই কাজ শেষ হলেই বাকী ১৫ শতাংশ টাকা দেওয়া হয়। বীরভূম – সহ যে জেলাগুলি শূন্য পেয়েছে তারা চলতি আর্থিক বছর শেষ হওয়ার মুহূর্তে এই কাজ আদৌ শেষ করতে পারবে বলে মনে করেন না অনেকেই। তাই ইন্দিরা আবাস যোজনায় বাড়ী তৈরীর কাজ হতাশাতেই চাপা পড়ে যাচ্ছে। মাথার উপরে যাঁদের আচ্ছাদনের সুযোগ এসেছিল তাও-ও তাঁরা পাচ্ছেন না সরকারী গাফিলতির ফলেই।

Loading...

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

    জানা অজানা

    সাহিত্য / কবিতা

    সম্পাদকীয়


    ফেসবুক আপডেট