গৃহশিক্ষক ছাড়ায় মাধ্যমিকে কৃতি ছাত্রী হতে চায় সুনাগরিক


সোমবার,০১/০৬/২০১৫
261

মোল্লা জসিমউদ্দিন, বর্ধমানঃ কেউ হতে চায় ডাক্তার, কেউ বা ইঞ্জিনিয়ার। নানান পেশায় যেতে চায় কৃতি পড়ুয়ারা। তবে কাটোয়া ৬৬৩ নম্বর পাওয়া বীথিকা প্রামানিক হতে চায় সুনাগরিক এবং সেই সাথে অসহায় মানুষের পাশে দাড়াতে। চলতি মাধ্যমিক পরীক্ষায় কাটোয়া ২নং ব্লকের সেরা হয়েছে দাঁইহাট বালিকা বিদ্যালয়ের ছাত্রীটি। বাবা দেবাশিস প্রামানিক পেশায় প্রাথমিক শিক্ষক এবং মা মণিকা প্রামানিক একজন সাধারণ গৃহবধূ। বরাবরই বিদ্যালয়ে প্রথম স্থান পেয়ে আসছে। কোন গৃহশিক্ষক নেই। বাবা – মা পড়াশোনা ব্যাপারে সর্বদা পাশে রয়েছে। মাধ্যমিকে বীথিকা বাংলায় ৯১, ইংরাজীতে ৯০, অঙ্কে ৯৮, ভৌতবিজ্ঞানে ৯৭, জীবনবিজ্ঞানে ৯৯, ইতিহাসে ৯৫ এবং ভূগোলে ৯৩ নম্বর পেয়েছে। এছাড়া ভালো গান করতে পারে বিশেষ করে রবীন্দ্রসঙ্গীতে বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় ভালো ফল করেছে। বীথিকা জানায়, আমার জীবনে মূল লক্ষ্য দেশের একজন সুনাগরিক হওয়া এবং সেই সাথে অসহায় মানুষদের পাশে দাড়ানো। প্রসঙ্গত কাটোয়া মহকুমা শাসক দপ্তরের বড়বাবু দিলীপ ভক্ত এই পরিবারের অবিভাবক হিসেবে সর্বদা পাশে থাকেন এবং পড়াশোনার উৎসাহ দানে অবগতি করে থাকেন।

Loading...

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

    জানা অজানা

    সাহিত্য / কবিতা

    সম্পাদকীয়


    ফেসবুক আপডেট