হিলি বর্ডারে মায়ের পুজো অতি সাদামাটা ভাবে হয়, কিন্তু ভক্তিভরে ।


শনিবার,১০/১০/২০১৫
236

পরিতোষ বর্মণঃ    রং বেরঙের আলোক সজ্জা বা জাঁকজমকতা না থাকলেও দুর্গাপূজার কয়েকটা দিন এক ভিন্ন স্বাদে মেতে ওঠেন ভারত বাংলাদেশ সীমান্ত লাগোয়া হিলি থানার ধলপাড়া গ্রাম পঞ্চায়েতের পূর্ব গোবিন্দপুর গ্রামের মানুষ। কাঁটাতারের ওপারে এই গ্রামের পূজাতে শুধু মাত্র হিন্দুরাই অংশ নেয় এমনটা নয়। হিন্দুদের পাশাপাশি এলাকার বেশ কয়েকটি মুসলিম পরিবারও সমান ভাবে অংশ নেয়। এপার বাংলার দুর্গাপূজা দেখতে ওপার বাংলার মানুষরাও ভিড় জমান।
একেবারে বাংলাদেশ লাগোয়া পূর্ব গোবিন্দপুর সর্বজনীন দুর্গাপূজা কমিটির উদ্যোগে পরিচালিত দুর্গা পূজা এবারে ৬২তম বছরে পা রেখেছে। স্বাধীনতার পর থেকেই দু’দেশের সীমান্তে ভারতীয় গ্রামে হিন্দু ও মুসলিমরা এক সঙ্গে পূজা করে আসছে। জানা গেছে, ১৯৫৩ সালে গ্রামবাসিদের উদ্যগে পূর্ব গোবিন্দপুর গ্রামে প্রথম শুরু হয় দুর্গাপূজা । তবে এই পূজাটি আগে দু’দেশের জিরো পয়েন্টে অস্থায়ী মন্দির গড়ে হত। যদিও পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর আপত্তির কারণে জিরো পয়েন্ট থেকে সরিয়ে প্রায় ২০ মিটার ভারতীয় ভূখন্ডের ভেতর স্থায়ী মন্দির তৈরি করে শুরু হয় এই দুর্গাপূজা। বর্তমানে এলাকাবাসিরা নিজেদের মধ্যে চাঁদা তুলে আনারাম্বরে হলেও ভক্তিভরে আয়োজন করেন মাতৃ আরাধনার। পূজার এই কয়েকটি দিন আট থেকে আশি সকলেই মেতে ওঠেন উৎসবে । মন্ডপ প্রাঙ্গনে স্থানীয় শিল্পীদের দ্বারা নাটক, কীর্তন পরিবেশিত হয়। এছাড়াও নবমীর দিন নিয়ম মেনে আয়োজন করা হয় বাংলার প্রায় হারিয়ে যাওয়া লোকগান যুগিপর্ব গানের আসর।Paritosh Barman_photo

Loading...

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

    জানা অজানা

    সাহিত্য / কবিতা

    সম্পাদকীয়


    ফেসবুক আপডেট