কিছু বলিউড অভিনেত্রীর চেহারায় অতিরিক্ত ফ্যাট জমছে


শুক্রবার,১১/১২/২০১৫
448

খবরইন্ডিয়াঅনলাইনঃ    বলিউডের অনেক অভিনেত্রীই ফিট থেকে ফ্যাট হয়েছেন। ক্যারিয়ারের শুরুতে তারা স্লিম ফিগারের অধিকারী থাকলেও পরবর্তীতে মুটিয়ে গেছেন। তাদের এই মুটিয়ে যাওয়া তাদের ক্যারিয়ারেও নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে।

ঐশ্বরিয়া রায়ঃ
বলিউড অভিনেত্রী এবং সাবেক মিস ইন্ডিয়া এবং মিস ওয়ার্ল্ড খেতাবজয়ী ঐশ্বরিয়া রাই ক্যারিয়ারের শুরুতে নান্দনিক ফিগারের অধিকারী ছিলেন। সৌন্দর্যের প্রতীক হিসেবে তখন অনেকে তাকেই ভাবতেন। কিন্তু অভিষেক বচ্চনের সঙ্গে বিয়ের পরে গর্ভবর্তী হওয়া এবং পরবর্তীতে মা হওয়ার পরে মুটিয়ে যান তিনি। সন্তান জন্মদানের পর তার যেসব ছবি মিডিয়ায় প্রকাশিত হয়েছে তাতে তাকে চেনাই মুশকিল। আগের ঐশ্বরিয়ার সঙ্গে এই ঐশ্বরিয়ার অনেক তফাৎ।

কারিনা কাপুরঃ
‘রিফিউজি’ ছবির মাধ্যমে বলিউডে পথচলা শুরু করেছিলেন কারিনা কাপুর। তখন তার স্বাস্থ্য ঠিক বলিউডি অভিনেত্রীদের মতো ছিল না। কারণ, ফ্রেন্চ ফ্রাই প্রিয় কারিনা একটু স্বাস্থ্যবানই ছিলেন তখন। কিন্তু সমসাময়িক অভিনেত্রীদের দেখে তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যে, তার ওজন কমানো উচিত। না হলে দৌড়ে টেকা যাবে না। ব্যাস, শুরু করলেন এক্সারসাইজ এবং ডায়েট ব্যালেন্স। এক সময় কারিনা হয়ে উঠলেন ‘জিরো সাইজ।’ এ সময় তার জনপ্রিয়তাও হয়ে ওঠে আকাশচুম্বী। কিন্তু সাইফ আলি খানকে বিয়ে করার পর ফের মুটিয়ে যেতে শুরু করেন কারিনা। অনেকের মতে কারিনার বর্তমান স্বাস্থ্য শুরুর দিকের স্বাস্থ্যের চেয়েও বেশি।

মাধুরী দিক্ষিতঃ
বলিউডের অন্যত্তম সফল অভিনেত্রী মাধুরী দিক্ষিত। দীর্ঘদিন তিনি থেকেছেন বলিউডের শীর্ষ নায়িকার আসনে। ‘তেজাব’, ‘দিল’ এবং ‘বেটা’ ছবিতে মাধুরীর যে ফিগার দেখা গিয়েছিল তা আজ পর্যন্ত বলিউডে অন্য কারও সঙ্গে তুলনা চলে না। কিন্তু হালের খবর এই মাধুরীও আর আগের মতো নেই। এখন অনেক স্থুল স্বাস্থ্য তার। ঐশ্বরিয়া রাইয়ের সঙ্গে এখন তার স্বাস্থ্যের তুলনা করা যেতে পারে।

কাজলঃ
বলিউডের এক সময়ের শীর্ষ অভিনেত্রী কাজল। স্লিম ফিগার এবং অনাবিল হাসির জন্যে দর্শকদের কাছাকাছি পৌঁছাতে পেরেছিলেন খুব দ্রুত। কিন্তু বিয়ে এবং সন্তানের মা হওয়ার পরই তার স্বাস্থ্যের পরিবর্তন ঘটে। বিয়ের পর তিনি আবার বলিউডে ফেরেন ‘ফানা’ এবং ‘মাই নেম ইজ খান’ ছবির মাধ্যমে। ওই ছবিগুলোতে যেই কাজলকে দেখা গেছে তার সঙ্গে আগের কাজলের স্বাস্থ্যগত অনেক তফাৎ। এই কাজল একটু বেশিই মোটা।

রানি মুখার্জীঃ
করণ জোহরের ‘কুছ কুছ হোতা হ্যায়’ ছবিতে মিনি স্কার্ট পরিহিত রানি মুখার্জীকে দেখে কোটি তরুণের রাতের ঘুম হারাম হয়েছিল। অভিনেত্রী কাজলের সঙ্গে তিনি যে কয়টি ছবিতে একসঙ্গে এক ফ্রেমে কাজ করেছেন, সব যায়গায় তিনিই এগিয়ে থেকেছেন তার নান্দনিক ফিগারের কারণে। কিন্তু ‘হাদ কার দিল আপনে’, ‘তারা রাম পাম’ কিংবা ‘আইয়া’র মতো সাম্প্রতিক ছবিতে রানিকে বেশ মোটা লেগেছে। শুধু তাই নয়, রানির তলপেটও এখন অনেক স্ফীত।

মণীষা কৈরালঃ
‘সওদাগর’ ছবিতে যেই মণীষা কৈরালাকে দর্শকরা পেয়েছিলেন তার স্বাস্থ্য স্লিম ছিল বললে ভুল হবে। বরং তার স্বাস্থ্য প্রয়োজনের চেয়ে কমই ছিল বলা যায়। হাড়-চামড়ার নায়িকা ছিলেন তিনি। ‘১৯৪২ : এ লাভ স্টোরি’ এবং ‘বোম্বে’ ছবি পর্যন্ত তিনি ছিলেন একই রকম। ‘মান’ এবং ‘লাজ্জা’ ছবিতে প্রথম তার মুটিয়ে যাওয়া ফিগারের দেখা পান দর্শকরা। সেই থেকে তার ফিগার বেড়েছে ছাড়া কমেনি। তিনিও ধীরে ধীরে দর্শকদের কাছ থেকে সরে গেছেন যোজন যোজন

 

Loading...

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

    জানা অজানা

    সাহিত্য / কবিতা

    সম্পাদকীয়


    ফেসবুক আপডেট