স্বামীর অত‍্যাচার ও পরকীয়ায় প্রতিবাদ করায় খুন হতে হল স্ত্রীকে


শুক্রবার,০২/০৩/২০১৮
512

নিজস্ব প্রতিনিধি: সম্প্রতি স্বামীর অমানুষিক ব‍্যবহার উপরন্তু পরকীয়ার কথা জানতে পেরে প্রতিবাদ করেছিলেন তিনি, তার ফল যে এমন ভয়ংকর হতে চলেছে তা হয়তো কল্পনাও করতে পারেনি কেউ। প্রায় চারদিন মত হাসপাতালের বিছানায় মৃত্যুর সাথে লড়াই করে অবশেষে বুধবার রাতে সমস্ত লড়াইয়ের সমাপ্তি ঘটিয়ে চলে গেলেন বারাসাতের রাসবিহারী রোডের বাসিন্দা পেশায় শিক্ষিকা নন্দিতা দে। স্বামী মধুসূদন দের বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ এনেছেন আত্মীয়রা।
মেডিক্যাল রিপ্রেজেন্টেটিভ মধুসূদন দের সাথে নন্দিতা দের বছর চোদ্দ আগে সম্বন্ধ করে বিয়ে হয়। তাদের বছর ১৪ একটি মেয়ে ও আছে।তবে সাম্প্রতিক মধুসূদন বাবু চাকরি ছেড়ে নিজস্ব ওষুধের ব‍্যবসা শুরু করেছিলেন। ব‍্যবসায় পসার জমাতে না পারায় মদের প্রতি আসক্ত হয়ে পড়েন। প্রায় প্রতিদিনই তিনি স্ত্রী কে টাকার জন্য জোরাজুরি করতেন। সংসারের অবস্থা ক্রমাগত অবনতি পথে চলে গেলে নন্দিতা দেবীই তার হাল ধরেন। মেয়ের পড়াশোনা থেকে শুরু করে বৃদ্ধ শ্বশুর-শাশুড়ি প্রত‍্যেকটা খরচই তিনি বহন করতেন। উপরন্তু সম্প্রতি মধুসূদন বাবু প্রতিবেশী এক মহিলার সাথে বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। যার জেরে সংসারে প্রতিনিয়ত অশান্তি লেগেই থাকত। প্রতিদিনই স্বামীর অত‍্যাচার মারধর সহ‍্য করতে হত নন্দিতা দে কে।
     শনিবার রাতে সম্পূর্ণ দগ্ধ অবস্থায় তাঁকে বারাসাত হাসপাতালে ভর্তি করেন স্বামী মধুসূদন দে নিজেই। নিকটস্থ আত্মীয়রা ছুটে আসেন খবর পেয়ে, মধুসূদন বাবু তাদের জানান গ‍্যাস সিলিন্ডার ফেটে দুর্ঘটনাটি ঘটেছে। কিন্তু নন্দিতা দের পরিবারের লোকজন সে কথা মানতে চাননি। প্রতিবেশীদের সাথে কথা বলে তারা পরে জানতে পারেন শনিবার রাতে কোনো গ‍্যাস সিলিন্ডার ফাটার শব্দই হয়নি। উপরন্তু ঘটনাস্থলে পেট্রোলের গন্ধ পায় তারা। নিজের দিক থেকে সন্দেহের তীর এড়াতে মধুসূদন বাবু নিজেই হাসপাতালে ভর্তি করেন স্ত্রীকে। অন‍্যদিকে বুধবার নন্দিতাদেবী মারা গেলে ক্ষোভে ফেটে পড়েন তার পরিবারের সকলেই। অভিযুক্ত মধুসূদন দে কে বারাসাত থানার পুলিশ গ্ৰেপ্তার করেছে।
Loading...

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

    জানা অজানা

    সাহিত্য / কবিতা

    সম্পাদকীয়


    ফেসবুক আপডেট