রাজ্য সরকারের দমকল বিভাগের কর্মীর অভিনব কায়দায় অবসর গ্রহণ


বুধবার,০১/০৮/২০১৮
245

পিয়া গুপ্তা---

কর্ম জীবনিকে স্মরনীয় করে রাখতে  রাজ্য সরকারের দমকল বিভাগের কর্মী অভিনব কায়দায় অবসর গ্রহণ করলেন। ঘটনার স্বাক্ষি রইলো উত্তর দিনাজপুর জেলার রায়গঞ্জ। কর্মজীবনের শেষদিনটিকে স্মরনীয় করে রাখতে ” গাছ লাগান, প্রান বাঁচান ” এই স্লোগানকে সামনে রেখে গাছের চারা বিতরন ও এই বর্ষায় ছত্রহীন দুস্থ গরীব রিক্সাচালক,  ভ্যানচালকদের ছাতা বিতরন করে এক অপূর্ব নজির গড়লেন রাজ্য সরকারের দমকল বিভাগের মেকানিক কাম চালক কালীপদ পাল। নিজের দুই ছেলেকে সাথে নিয়ে দপ্তরের কর্মজীবন থেকে অবসর গ্রহনের দিনই রায়গঞ্জ শহরের রাস্তায় দাঁড়িয়ে ভ্যান ও রিক্সাচালকদের হাতে তুলে দিলেন  নানা ধরনের গাছের চারা ও একটি করে ছাতা। অবসর গ্রহনের দিনে এমন একটি কাজ করতে পেরে পরিতৃপ্ত কালীপদবাবু।

দপ্তরে এলার্ম বাজতেই শহর থেকে শহরতলি,  গ্রাম থেকে গ্রামান্তরে আগুন নেভাতে ছুটে গিয়েছেন দমকলের ইঞ্জিন নিয়ে। আগুন নেভানো কিংবা যে কোনও বিপদে আর্তদের পাশে দাঁড়িয়েছেন তার কর্তব্যপালনে। রায়গঞ্জ শহরের মিলনপাড়ার বাসিন্দা কালীপদ পালের ঘটনাবহুল কর্মজীবন তার শুরু হয়েছিল ১৯৮১ সালের ২১ শে মে। মঙ্গলবার ছিল তার কর্মজীবনের শেষ দিন। কোনও ফেয়ারওয়েল বা পরিবার নিয়ে কোনও গ্রান্ড পার্টি নয়, দুস্থ,  আর্তদের পাশে দাঁড়ানো মানুষ তার কর্মজীবনের শেষদিনটিকে স্মরনীয় করে রাখলেন দুস্থদের পাশে দাঁড়িয়েই। সমাজ ও পরিবেশ সচেতনতার পাশাপাশি বর্ষায় বৃষ্টিতে ভিজে যেসব রিক্সাচালক ও ভ্যানচালকেরা দিনাতিপাত করছেন তাদের হাতে তুলে দিলেন ছাতা। আর পরিবেশের ভারসাম্য বজায় রাখতে সবুজায়নের লক্ষ্যে বৃক্ষরোপনের উদ্দেশ্যে তাদের হাতে তুলে দিলেন চারাগাছ। পেটের টানে বৃষ্টিতে কাকভেজা হয়ে দিনাতিপাত করা গরীব দুস্থ ভ্যানচালক ও রিক্সাচালকেরা খুবই খুশী ছাতা হাতে পেয়ে। পরম যত্নে বাড়িতে নিয়ে গেলেন চারাগাছটিকে রোপন করে মহীরুহ করে তোলার লক্ষ্যে। আর  দীর্ঘ কর্মজীবনের পর অবসরের দিনে বিষদের অশ্রু নয় বরং দুস্থ মানুষদের পাশে দাঁড়াতে পেরে আজ কালীপদবাবুর চোখেমুখে ছিল পরিতৃপ্তির উজ্জ্বল আভা।

Loading...

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

    জানা অজানা

    সাহিত্য / কবিতা

    সম্পাদকীয়


    ফেসবুক আপডেট