সেরেনার হার ও বিতর্কে শেষ ইউএস ওপেন


রবিবার,০৯/০৯/২০১৮
395

রাকিবুল ---

সেরেনার হার ও বিতর্কে শেষ ইউএস ওপেন
কেরিয়ারের শেষের দিকটা কিছুতেই ভাল যাচ্ছে না সেরেনা উইলিয়ামসের। কিছুদিন আগে উইম্বলডন ওপেনের ফাইনালে জার্মানির আঙ্গেলিক কারবারের কাছে হারের পর এবার ইউএস ওপেনের ফাইনালেও হারলেন সেরেনা। সেরেনা যখন সেমিফাইনালে জিতে ফাইনালে ওঠেন তখন সবার প্রত্যাশা ছিল ইউএস ওপেন জেতার ব্যাপারে কিন্তু তিনি শেষপর্যন্ত হেরে গেলেন জাপানের নোয়ামি ওসাকার কাছে ৬-২, ৬-৪ এ। শুধু হারলেনই না চেয়ার আম্পায়ারের সঙ্গে বিতর্কেও জড়ালেন।
চেয়ার আম্পায়ার কার্লোস রামোস অভিযোগ করেছেন যে, সেরেনা টেনিস র নিয়ম লঙ্ঘন করেছেন। দ্বিতীয় সেটে সেরেনার বিরুদ্ধে তিনটি নিয়ম ভাঙার অভিযোগ এনেছেন রামোস। প্রথম অভিযোগ হল, তিনি খেলার সময় কোচের কাছ থেকে সেরেনা সাহায্য নিয়েছেন। দ্বিতীয়টি হল, তিনি রাকেট ভেঙে ফেলেছেন সেটার জন্য তাঁকে এক পয়েন্ট পেনাল্টি ও করা হয়। তৃতীয়টি, রেফারিকে চোর বলে হেনস্থা করার জন্য পেনাল্টি করা হয়।

খেলার শেষে প্রেস কন্ফারেন্স করে সেরেনা বলেছেন, “ উনি (রেফারি)আমার কাছ থেকে এক পয়েন্ট কেড়ে নিয়েছেন কারন আমি নাকি প্রতারনা করেছিলাম কিন্তু আমি কোনো প্রতারনা করিনি। তাঁর সাথে আমার ভালোভাবে কথাও হয়েছিল এবং আমি তঁকে বলেছিলাম, আপনি তো আমাকে ভালোভাবে চেনেন। আমি মাঠে অসৎ ভাবে কোন সাহায্যও নেয়নি। তিনি বললেন, আমি বুঝতে পেরেছি আপনি কী বলতে চাইছেন।”

এর সঙ্গে সঙ্গে তিনি মহিলাদের প্রতি বৈষম্যের অভিযোগ এনেছেন চেয়ার আম্পায়ার কার্লোস রামসের বিরুদ্ধে। তাঁর কথায়, আমি বুঝতে পেরেছি আপনি বলতে চাইছেন আমি কারো কাছ থেকে সাহায্য নিয়েছি। কিন্তু সব সময় আমি মাঠে এরকমই করে থাকি। ম্যাচ অসৎ উপায়ে জেতার থেকে হেরে যাওয়া কে শ্রেয় বলে আমি মনে করি।
সেরেনা উইলিয়ামসের বিরুদ্ধে মূল অভিযোগ ছিল বাইরে থেকে কোচের কাছ থেকে সাহায্য নেওয়ার জন্য। কিন্তু সেরেনা এই অভিযোগ সম্পূর্ণ অস্বীকার করেছেন ও চেয়ার আম্পায়ার কার্লোস রামসের বিরুদ্ধে মহিলাদের প্রতি বৈযম্যের অভিযোগ এনেছেন। ম্যাচ চলাকালীন চেয়ার আম্পায়ার কার্লোস রামোস লক্ষ করেন সেরেনার কোচ প্যাট্রিক সেরেনাকে লক্ষ করে কিছু ইঙ্গিত করেন। এটার জন্য রামোস সেরেনাকে সতর্ক করেন। কিন্তু সেরেনা সেটা অস্বীকার করেন এবং রামোসের সাথে কথা কাটাকাটিতে জড়ায়। যদিও ইএসপিএন কে সাক্ষাতকার দেওয়ার সময় সেরেনার কোচ সাহায্যের কথা স্বীকার করেন।
এরপর উইলিয়ামস দুই পয়েন্টে হারে। ওসাকা যখন তাঁর পঞ্চমতম গেম ব্রেক করেন তখন সেরেনা তাঁর রাকেট ভেঙে দেন এবং দ্বিতীয় বারের জন্য নিয়ম ভাঙার জন্য তাঁকে জরিমানা করা হয়। পরের গেম শুরু হওয়ার আগে সেরেনা রামোসের কাছে আসেন এবং রামোসকে দর্শকদের উদ্দেশ্যে বলতে বলেন যে তিনি কোন অসৎ কিছু করেননি। এ ধরনের আচরণের জন্য আম্পায়ার সেরেনাকে সতর্ক করেন।

সেরেনা আগের সতর্ককে তোয়াক্কা না করে আবার আম্পায়ারের কাছে যান এবং কথাকাটাকাটিতে জড়িয়ে পড়েন। তিনি রামোসকে বলেন, আপনি চোর আমার পয়েন্ট চুরি করেছেন। তারপর, আম্পায়ার পরের ম্যাচের জন্য সেরেনাকে সাসপেন্ড করেন।
এই গ্রান্ডস্লামের খেতাব যদি সেরেনা জিততে পারতেন তাহলে এটি তাঁর ২৪তম গ্রান্ডস্লাম খেতাব হত এবং তিনি ছুঁয়ে ফেলতে পারতেন সর্বকালের সেরা টেনিস তারকা মারগারেট কোর্টের রেকর্ড। সেরেনা এটা জিততে পরলেন না। সেরেনার কাছ থেকে ইউএস ওপেনের খেতাব ছিনিয়ে নিলেন ২০ বছরের জাপানি তারকা নোয়ামি ওসাকা।
ম্যাচ জেতার পর ওসাকা বলেন, “ আমি জানি সেরেনা সত্যি সত্যি তাঁর ২৪তম গ্র্যান্ডস্লাম জিততে ছেয়েছিলেন। প্রত্যেকেই জানে যে এটা একটা ম্যাচ। যখন আমি এই ম্যাচটা খেলতে নামি তখন আমি নিজেকে অন্য রকম মনে করতে থাকি। আমি একজন সেরেনার ভক্ত নই। আমি একজন টেনিস প্লেয়ার অন্য আরএকজন প্লেয়ার র সঙ্গে খেলছি কিন্তু যখন আমি সেরেনা কে জড়িয়ে ধরি তখন আমার নিজেকে একজন শিশু বলে মনে হছিল”। এটা বলতে বলতে ওসাকা কান্নায় ভেঙে পড়েন এবং সেরেনা তাঁকে সান্ত্বনা দেন।

ম্যাচ শেষে সেরেনা বলেন, ওসাকা খুব ভাল খেলছিল এই ম্যাচটা ওর প্রাপ্য ছিল এবং শেষ পর্যন্ত ম্যাচটা এভাবেই শেষ হল। এরপর তিনি দর্শকদের উদ্দেশ্যে বলেন, ওসাকা খুব ভাল খেলেছে এবং এটি তার প্রথম গ্রান্ডস্লাম। সেরেনা এটা তাঁর ২৪তম গ্রান্ডস্লাম হিসাবে জিততে চেয়েছিলেন কিন্তু ভাল খেলেও তিনি জিততে পারলেন না। শেষ পর্যন্ত তিনি বিতর্কেও জড়ালেন।
সেরেনার আশা তিনি সর্বকালের সেরা মারগারেট কোর্টের রেকর্ড ভেঙে নতুন রেকর্ড তৈরি করবেন, টেনিস থেকে অবসর নেওয়ার আগে। কিন্তু এখনও পর্যন্ত তিনি সেই আশা পূরণ করতে পারেননি, সময়ই বলবে সেটি পূরণ হবে কিনা। এই ম্যাচটাতে তিনি অযথা বিতর্কে জড়ালেন যেটা একটু মাথা ঠান্ডা করে সামলে নিতে পারতেন এবং তার ফলে দর্শক মহল থেকে তার বিরুদ্ধে বিরুপ প্রতিক্রিয়া আস্তে লাগল। কারও কারও কাছ থেকে শোনা গেল তিনি তাঁর বিরোধীকে সম্মান করেন না। সুতরাং তিনি তাঁর কেরিয়ারের শেষের দিকে নিজের প্রতি একটু অবিচারই করে ফেললেন!

Loading...

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

    জানা অজানা

    সাহিত্য / কবিতা

    সম্পাদকীয়


    ফেসবুক আপডেট