কারখানা নির্মান করতে লাল মাটি ফেলে চলছে কৃষি জমি ভরাট সবুজ ধ্বংসে, উদাসীন প্রশাসন


বুধবার,১৩/০৩/২০১৯
106

বাংলা এক্সপ্রেস---

হাওড়া: বালি বোঝায় লরির দেখলে আটকাচ্ছে পুলিশ। কিন্তু লাল মাটির ডাম্পার দেখলেও আটকাচ্ছে না।বালি পাচার রুখতে যতটা তৎপরতা পুলিশ। লাল মাটির ডাম্পার দেখলেও কিছুই করছে না প্রসাশন। আর যার ফলে লাল মাটি চলে যাচ্ছ হাওড়া গ্রামীণ এলাকার বিভিন্ন প্রজেক্টে। আর কৃষিজমি সবুজ ভরা মাঠ চলছে ভরাট, কারখানা নির্মাণের জন্য। এমনই ছবি ধরা পড়ছে আমতা চন্দ্রপুর এলাকায়। আমতা ইন্ডাস্ট্রিয়াল এলাকায় কারখানা নির্মানের জন্য বিঘার পর বিঘা চলছে জমি ভরাটের কাজ। বিঘার পর বিঘা জমিতে মাটি ফেলে তার উপর লাল মাটি ফেলে কারখানার যোগ‍্য করে তোলা হচ্ছে।

আর এই সব কাজের জন্য বিভিন্ন কন্ট্রাকটরদের বরাত মিলছে। এমনও অভিযোগ উঠেছে এই মাটি ভরাটের কাজের সঙ্গে শাসক দলের কিছু নেতাও জড়িয়ে আছে। আমতা-১ নং ব্লকের চন্দ্রপুর এলাকায় কয়েকশো বিঘা জমির উপর গড়ে উঠেছে একটি সংস্থার কারখানা। মাটি ভরাটের কাজে নামানো হয়েছে ৩০ টির ও বেশি ডাম্পার। ওই সব ডাম্পারের লাল মাটি ভরে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। আর ঝাঁকুনিতে লাল মাটির চাঙর ছিটকে পড়ছে রাস্তায়। এর ফলে দুর্ঘটনার কবলে পড়ছেন স্কুল পড়ুয়া থেকে পথচলতি সাধারন মানুষ।

বাপন পাল নামে এক বাইক আরোহী বলেন,পেট্রোল পাম্প থেকে তেল নিয়ে বেরোচ্ছি ডাম্পার থেকে একটি চাঙর ছিটকে এসে আমার বাইকের সামনে পড়ে অল্পের জন্য রক্ষা পায়।আবার কেউ কেউ অভিযোগ করেছেন লাল মাটিতে জমি ভরাট করার জন্য আশেপাশের সবুজ নষ্ট হচ্ছে। অভিযোগ রাস্তা দিয়ে ডাম্পারে করে লাল মাটি নিয়ে যাওয়া হচ্ছে ত্রিপল দিয়ে ঢাকা না দিয়ে। যার ফলে রাস্তায় পড়ছে লাল মাটি।

বড়সড় দুর্ঘটনা ঘটলে এর দায় কে নেবে? আমতা রুটে দিয়ে একাধিক বাস, ট্রেকার,অটো,কয়েকশো টোটো চলাচল করে। মাঝের মধ্যে ছোটখাটো দুর্ঘটনা ঘটেই চলেছে। প্রশাসনের কোনরকম নজরদারি নেই বলে স্থানীয়দের অভিযোগ। তবে আশেপাশের জমি গুলির সবুজ নষ্ট হচ্ছে বলে স্বীকার করে নিচ্ছে এলাকাবাসী।

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

জানা অজানা

সাহিত্য / কবিতা

সম্পাদকীয়


ফেসবুক আপডেট