পাঁশকুড়ায় প্রচারে গিয়ে গাড়ি ভাঙচুর ভারতী ঘোষের, প্রতিবাদে রাস্তা অবরোধ


শুক্রবার,১২/০৪/২০১৯
149

বাংলা এক্সপ্রেস---

পশ্চিম মেদিনীপুর: বিজেপি প্রার্থী ভারতী ঘোষ পাঁশকুড়ায় প্রচারে গিয়ে তৃণমূলের বিক্ষোভের মুখে পড়লেন।গাড়ি ভাঙচুর এর অভিযোগ উঠেছে। বিজেপির দাবি, বৃহস্পতিবার নির্বাচন কমিশনের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে ঘাটাল লোকসভার বিজেপি প্রার্থী পূর্ব মেদিনীপুরের পাঁশকুড়া (পশ্চিম) বিধানসভার বিভিন্ন এলাকায় ভোট প্রচার শুরু করেন। বিজেপির সূত্রে খবর, ভারতী ঘোষ এ দিন সকাল ১১ টা নাগাদ পাঁশকুড়া (পশ্চিম) বিধানসভার যশোড়া বাজার থেকে ভোট প্রচার শুরু করেন। এরপর যশোড়া বাজার থেকে ১২ টা নাগাদ ভারতী ঘোষ দলীয় কর্মীদের নিয়ে পাঁশকুড়া থানার মাইশোরার দিকে ভোট প্রচারে আসেন।

অভিযোগ, মাইশোরা পৌঁছানোর আগেই গোপালহাজরা গ্রামের কাছে কয়েকশো তৃণমূল কর্মী কালো পতাকা দেখিয়ে ও ‘গো-ব্যাক’ শ্লোগান দিয়ে ভারতী ঘোষের পথ আটকায়। এরপর ভারতী ঘোষ গাড়ি থেকে নেমে আসেন।অভিযোগ, ভারতী ঘোষের সঙ্গে থাকা কনভেনার গাড়ি তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা ভাঙচুর চালায়। বিজেপির আরো অভিযোগ ভারতী ঘোষ কে লক্ষ্য করে ঢিল ছুঁড়ে তৃণমূল কর্মীসমর্থকরা। এই ঘটনার প্রতিবাদে গোপালহাজরা গ্রামের কাছে ভারতী ঘোষ তাঁর অনুগামীদের নিয়ে বেশ কয়েক ঘন্টা রাস্তায় বসে বিক্ষোভ দেখান।

এই ঘটনায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায় এলাকায়। একদিকে বিজেপির কর্মীদের জিন্দাবাদ। অবার অন্যদিকে তৃণমূল কর্মীদের ভারতী ঘোষ দূর হঠাও স্লোগান উঠে। এরপর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে ভারতী ঘোষ বলেন, “এই নিয়ে তিন তিনবার আমার উপর হামলা হল। এই সরকারের কোন লজ্জা নেই। তৃণমূল সরকার ভোট লুঠ করে থাকতে চাইছে। আমি ঘাটাল লোকসভা এলাকার মানুষের দু:খ-দূর্দশা বুঝে মানুষের ঘরে ঘরে যাচ্ছি। আজ আমি পশ্চিম পাঁশকুড়ায় ভোট প্রচারে এসেছি। এই মাইশোরা গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার মানুষেরা বলছে যে ভোট লুঠ হয়েছে। গত পঞ্চায়েতের সময়ে তারা ভোট দিতে পারেননি।”

তাঁর অভিযোগ, স্থানীয় তৃণমূল নেতা ও পাঁশকুড়া ব্লক তৃণমূল সভাপতি কুরবান শা নামে একটা গুন্ডা সাধারণ মানুষদের ভয় দেখিয়েছে।বাড়িতে বাড়িতে লুঠপাট ও হামলা চালিয়েছে। তবে প্রচণ্ড ভয়ে মানুষ অস্থির হয়ে রয়েছে।” তবে ভারতী ঘোষের দাবি, “এখান দিয়ে আমি যাচ্ছি। মানুষকে আমি বলছি আপনারা নির্ভয়ে মতদান করুণ। এটা নয় যে আমাকে ভোট দিতে হবে। ভোটাধিকার মৌলিক অধিকার।

আপনারা বাড়ি থেকে বেরিয়ে ঠাণ্ডা মাথায়, নিশ্চিন্তে ও সুরক্ষার সহিত ভোটটা দিন। আর ওরা বলছে আমরা বাড়ি থেকে বেরুতে পারছি না।কুরবান শা যে ভয়ঙ্কর গুন্ডা। আমাদেরকে আক্রমণ করে ভয় দেখিয়ে রেখে দিয়েছে।আমার কনভেনার গাড়ি ভেঙে দিল তৃণমূলের দুষ্কৃতীরা। গুন্ডাবাহিনীরা আমার ইলেকশন এজেন্টকে আবার আক্রমণ চালায়। এরা সব তৃণমূলের গুন্ডা। আমি নির্বাচন কমিশনকে পুর বিষয়টি জানিয়েছি। যদি নির্বাচন কমিশন কোন পদক্ষেপ না নেয় তাহলে আমরা বৃহত্তর আন্দোলনে নামব।”

ভারতী ঘোষের প্রসঙ্গে কুরবান শা’র অনুগামী ও স্থানীয় তৃণমূল নেতা তথা মাইশোরার পঞ্চায়েত সদস্য বাবলু ছাতিক বলেন, “ভারতী ঘোষ তৎকালীন পুলিশ সুপার থাকাকালীন সোনা চুরি করেছিলেন। আমরা গাড়ি চালক। আমরা অত্যাচারিত হয়েছি।এখন উনি বিজেপিতে গিয়ে প্রার্থী হয়েছেন।এরকম প্রার্থীকে আমরা মানি না। তাই আমরা ভারতী ঘোষ কে তৃণমূলের তরফে কালো পতাকা দেখিয়ে বিক্ষোভ দেখিয়েছি।”

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

জানা অজানা

সাহিত্য / কবিতা

সম্পাদকীয়


ফেসবুক আপডেট