বাংলাকে বঞ্চনা করে ভোট চাইছে এখন বসন্তের কোকিলের মতো


শনিবার,২৭/০৪/২০১৯
240

বাংলা এক্সপ্রেস---

হাওড়া: বাংলার মানুষকে লাগাতার বঞ্চনার পরে লোকসভা নির্বাচনে ভোট চাইছে বিজেপি। শনিবার হাওড়া দুই লোকসভা কেন্দ্রে নির্বাচনী প্রচারে এসে এমনই অভিযোগ করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যাপাধ্যায়। শুরু থেকেই বিজেপিকে কড়া ভাষাই আক্রামন করে বলেন, বাংলার মানুষকে লাগাতার বঞ্চনার পরে লোকসভা নির্বাচনে ভোট চাইছে বিজেপি। এদিন ভাষণে প্রধানমন্ত্রীকে নিশানা করে তৃণমূল নেত্রী বলেন, বাংলাকে বঞ্চিত করে এখন ভোট এসেছে বলে, তাই বসন্তের কোকিলের মতো এসে কুহু কুহু করছে।

এরপরও কেন বাংলার মানুষ ওদের ভোট দেবে? বিপদে যাদের দেখা পাওয়া যায় না, তাদের কেন ভোট দেবে মানুষ? নেত্রী আরও বলেন,বাংলায় নাকি আবার এন,আর সি চালু করবে ক্ষমতা তো কম নয়। আমি প্রতিবাদ করি বলে আমাকে চমকায়। মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, এই ভোট পঞ্চায়েত ভোট নয়, জেলা পরিষদের ভোট নয়, এটা বিজেপি সরকারকে তাড়ানোর ভোট। দিল্লিতে অত্যাচারী, দানবিক সরকারকে বদলে ফেলার ভোট।৫ বছর আগে মোদী বাবু চাওয়ালা সেজেছিল। এখন তিনি নাকি চৌকিদার হয়েছে। যে বহুরূপীর মতো রূপ বদলায়, সেই চৌকিদার কেমন।

এমন চৌকিদার নাকি দেশ চালাবে।এদিন মমতা আরও অভিযোগ করেন, এক সময়ের লালপার্টির হার্মাদরাই এখন বিজেপির ওস্তাদ হয়েছে। এই ওস্তাদদের জন্যই বাংলায় এসে উঁকি মারছে। এরা ধর্ম মানে না, শুধু সন্ত্রাস করে। নেত্রীর দাবি, পাঁচ বছর ধরে শুধুই বঞ্চনা করা হয়েছে বাংলাকে। তৃনমূল নেত্রী আরও বলেন, এরা হিন্দু ধর্ম মানে না। এদের একমাত্র ধর্ম হল দাঙ্গা। ওদের বিদায়ঘণ্টা বাজার সময় এসেছে। রাজ্যে তৃণমূল কংগ্রেস ক্ষমতায় আসার পর যে পরিমাণ উন্নতি হয়েছে গোটা বাংলায় তা আগে কখনো হয়নি বলে জানান তিনি।

সেইসঙ্গে সমগ্র রাজ্যে বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজ, কন্যাশ্রী, রূপশ্রী সহ বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের খতিয়ান তুলে ধরেন।তিনি আরও জানান, লোকসভা নির্বাচনে ৪২ শে ৪২ টি আসন জিতে কেন্দ্রে সরকার গড়বে তৃণমূল। মমতা বলেন, ‘সকলকে নিয়ে সরকার গড়ব।’এদিন প্রথম সভাটি হয় জয়পুর ফুটবল মাঠে। উলুবেড়িয়া লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী সাজদা আহমেদের সমর্থনে। দ্বিতীয় সভাটি হয় হাওড়া সদর লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী প্রসূন ব্যানার্জির সমর্থনে পাঁচলা নেতাজী সংঘের মাঠে।

Loading...

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

    জানা অজানা

    সাহিত্য / কবিতা

    সম্পাদকীয়


    ফেসবুক আপডেট