ফোনির প্রভাবে উপকূলবর্তী জেলাগুলিতে বৃষ্টি থেকে অতি ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা


বুধবার,০১/০৫/২০১৯
532

বাংলা এক্সপ্রেস---

৩ মে ২.৩০ থেকে সাড়ে ৫ টার মধ্যে ওড়িশা পুরি (গোপালপুর) ক্রশ করে ফোনি পশ্চিমবঙ্গে ঢুকবে। এর ফলে উপকূলবর্তী জেলাগুলিতে 3 তারিখ এবং 4 তারিখ ভারী বৃষ্টি থেকে অতি ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। সঙ্গে ঝড়ো হাওয়া বইবে 2 তারিখ থেকে। রাজ্যে ঝড়ো হাওয়া বইতে শুরু করবে। দু তারিখ থেকে 40 থেকে 50 কিলোমিটার বেগে এই ঝড়ো হাওয়া বইতে শুরু করবে এবং তা ধীরে ধীরে বাড়তে থাকবে। পরে তা 80 থেকে 100 কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হওয়া বৃদ্ধি হবে এবং যার সর্বোচ্চ 115 কিলোমিটার পর্যন্ত বইতে পারে। এর ফলে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা করা হচ্ছে।

3 তারিখ থেকে রাজ্যের সর্বত্র বৃষ্টির সম্ভাবনা। তিনটে জেলা পূর্ব মেদিনীপুর, পশ্চিম মেদিনীপুর, এবং ঝারগ্রাম ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। সমুদ্রবর্তী জেলাগুলিতেও ভারী বৃষ্টির আশঙ্কা রয়েছে। 2 তারিখ সমুদ্রবর্তী জেলা গুলিতে ঝড়ো হাওয়া সম্ভাবনা যা ঘণ্টায় 40 থেকে 50 কিলোমিটার বেগে। সর্বোচ্চ 60 কিলোমিটার বেগে ঐদিন ঝড়ের সম্ভাবনা। 4 তারিখ সকাল থেকেই ঘন্টায় 90 থেকে 100 কিলোমিটার বেগে ঝড়ের সম্ভাবনা।

সর্বোচ্চ 115 কিলোমিটার ঘন্টায় ঝড়ের আশঙ্কা। মৎস্যজীবীদের 2 তারিখ থেকে সমুদ্রে মাছ ধরতে যাওয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। যারা ইতিমধ্যে মাছ ধরতে গিয়েছিল সমুদ্রে তাদেরকে আজ বিকেলের মধ্যে ফিরে আসার জন্য বলা হয়েছে। সমুদ্র তীরবর্তী সমস্ত টুরিস্ট স্পট বন্ধ করে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আশঙ্কা করা হচ্ছে কাঁচা বাড়ি ভেঙে পড়ার, পুরনো বাড়ি ভেঙে পড়ার, গাছ উঠে পড়ার।

গুরুত্বপূর্ণ নথিপত্র বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে রাখবার পরামর্শ দেয়া হচ্ছে আবহাওয়া দপ্তরের পক্ষ থেকে। শহরের বিভিন্ন পার্ক ও এই সময় বন্ধ রাখার পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। সাধারণ মানুষের খোলা আকাশের নিচে না থেকে ইন্ডোরে কোন নিরাপদ জায়গায় আশ্রয় নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। শুকনো খাবার মজুত রাখার কথাও বলা হচ্ছে আবহাওয়া দপ্তরের পক্ষ থেকে।

Loading...

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

    জানা অজানা

    সাহিত্য / কবিতা

    সম্পাদকীয়


    ফেসবুক আপডেট