ভাঙড়ে বিকাশকে কটুক্তি, বাক-বিতন্ডায় সিপিএম- তৃণমূল


সোমবার,০৬/০৫/২০১৯
477

সাদ্দাম হোসেন মিদ্দে---

বাংলা এক্সডেক্স,ভাঙড়: ভাঙড়ে নির্বাচনী প্রচারে এসে কটুক্তির শিকার যাদবপুরের সিপিআইএম প্রার্থী বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্য। কটুক্তিকে ঘিরে তীব্র বাক-বিতণ্ডায় সিপিএম -তৃণমূল কর্মীরা। ঘটনাটি ভাঙড় ১এ ব্লকের প্রাণগঞ্জ অঞ্চলের বড়ালি গ্রামের

শনিবার বিকেলে সিপিএমের পতাকা খোলার খবর পেয়ে যাদবপুরের বাম প্রার্থী তথা সিপিএম নেতা ভাঙড়ের প্রাণগঞ্জ অঞ্চলের মরিচা গ্রামে ছুটে আসেন। সেখানে দলীয় কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে পতাকা খোলা অভিযুক্ত তৃণমূল নেতা -কর্মীদের বাড়িতে যান। সেখান থেকে ফিরছিলেন নারায়ণপুর অঞ্চলের পাগলাহাটে পথ সভার করার উদ্দেশ্য। মাঝখানে বড়ালি গ্রামে একটি খেলার মাঠে লোকজন দেখে সেখান গাড়ি থেকে নেমে পড়েন বিকাশ বাবু। তাদের সঙ্গে কথা বলেন। কথা বলেন সেখানকার মহিলা এবং শিশুদের সঙ্গেও। তারপর গাড়িতে উঠে সিপিএম নেতা তুষার ঘোষকে সঙ্গে নিয়ে পাগলা হাটের সবার দিকে যাচ্ছিলেন তিনি।

এমন সময় বড়ালী গ্রামের এক তৃণমূল কর্মী বিকাশ বাবুকে দেখে বলতে থাকেন ৩৪ বছর কোথায় ছিলেন? কোন উন্নয়ন করেনি আর এখন ভোট চাইতে এসেছেন? গাড়ি থেকেই বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্য, তুষার ঘোষরা ওই তৃণমূল কর্মীর কটাক্ষের জবাব দিতে থাকেন। এর মাঝখানে ওই তৃণমূল কর্মী তুষার বাবু এবং বিকাশ বাবুকে উদ্দেশ্য করে বলতে থাকেন আপনারা কলকাতা লেদার কমপ্লেক্স থেকে প্রচুর টাকা লুট করেছেন।এই কথা শুনে তাঁরা আর থেমে থাকতে পারেননি। সটান গাড়ি থেকে নেমে ওই তৃণমূল কর্মীর কাছে যান। তুষার বাবু জানতে চান, “আমি কোথা থেকে টাকা লুঠ করেছি?কি প্রমাণ আছে আমার বিরুদ্ধে?প্রমাণ থাকলে  মামলা করুন। না জেনে এসব আজেবাজে মন্তব্য করবেন না।” সঙ্গে থাকা কয়েকজন সিপিএম কর্মীও ওই তৃণমূল কর্মীর কাছে তেড়ে-ফুঁড়ে জান। তারা বলেন, “তোমাদের এলাকায় এসেছি তো তুমি কি মনে করেছ? বিকাশ -তুষার বাবুরা তৃণমূলের নেতা নয়, যে টাকা নেওয়ার সময় ক্যামেরায় ধরা পড়বে।”

বিকাশবাবু অবশ্য উত্তেজিত না হয়ে স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিতে তার পিঠ চাপড়ে তাকে বোঝাতে থাকেন। বলেন, “ঠিক আছে আপনার দিদি যদি উন্নয়ন করে দিদিকে ভোট দিন।তবে আমাদেরকে প্রচার করতে দিন,আপনার দিদি কি করেননি সেটা আমরা প্রচার করব।” তারপর গাড়ি করে বিকাশ বাবু,তুষার ঘোষরা পাগলা হাটের কর্মী সবার উদ্দেশ্যে রওনা দেন

এদিন তৃণমূল কর্মী ও বাম নেতা-কর্মীদের সঙ্গে কথা কাটাকাটির সময় উপস্থিত ছিলেন তৃণমূলের শ্রমিক নেতা তথা প্রাণগঞ্জ অঞ্চলের উপপ্রধান মফিজুল ইসলাম।মফিজুল ইসলাম অবশ্য তৃণমূল কর্মীকে বলেন ,”ঠিক আছে ওরা প্রচার করে করতে দে। মানুষ কাদের সঙ্গে আছে সেটা ভোটে বোঝা যাবে।”

Loading...

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

    জানা অজানা

    সাহিত্য / কবিতা

    সম্পাদকীয়


    ফেসবুক আপডেট