জরাজীর্ণ ঘরে পড়াশুনা করেও লেটারমার্কস পেয়েছে দেগঙ্গার তন্ময় নন্দী


বৃহস্পতিবার,২৩/০৫/২০১৯
338

নিজস্ব প্রতিবেদক ---

বাংলা এক্সপ্রেস, দেগঙ্গা : এবছর ২০১৯ মাধ্যমিক পরীক্ষার ফল প্রকাশ হয়েছে ২১ মে মঙ্গলবার। সর্বোচ্চ নম্বর ও পাশের শতকরা হারে সর্বকালীন রেকর্ড তৈরি করেছে। সৌগত দাস ৬৯৪ পেয়ে প্রথম হয়েছে। প্রথম দশের মধ্যে জায়গা করে নিয়েছে ৫১ জন। একচিলতে ঘরে চারধারে দরমার বেড়া, মাথায় টিনের ছাউনি। তারই মধ্যে রাত জেগে পড়াশুনা করে সব বিষয় লেটার মার্ক্স পেয়ে নজির গড়ল দেগঙ্গার তন্ময় নন্দী।

ট্রেনে হকারি করা পান বিক্রেতা দেগঙ্গার কালাচাঁদের ছেলে তন্ময় হতে চাই ইঞ্জিনিয়ার।
পরিবারের চিন্তা কিভাবে তাদের ছেলের স্বপ্ন পুরণ করবে? দেগঙ্গার আমিনপুর গ্রামের কালাচাঁদ নন্দী ভোরের আলো ফোটার আগে কাঁধের বেল্ড বাঁধা পানের ঝুড়ি নিয়ে বারাসত হাসনাবাদ শাখার ট্রেনে চলে যান পান বেচতে। সারাদিন যাত্রীদের কাছে পান বিক্রি করে মেলে শদুয়েক টাকা। দুই ছেলে কালাচাঁদের। বড় ছেলে টাকার অভাবে মাধ্যমিক পাশ করার পর সে হোটেলে শ্রমিকের কাজ যুক্ত হয়েছে । ছোট ছেলে তন্ময় এবার মাধ্যমিকে সব বিষয়ে লেটার পেয়েছে। তন্ময় কাত্তিকপুর দেগঙ্গা আদর্শ বিদ্যাপীঠের ছাত্র। তার প্রাপ্ত নম্বর ৭০০ মধ্যে ৬১৪। বাংলায় ৯০, ইংরাজি- ৮১,অঙ্কে ৮৭, ভৌত বিঞ্জান- ৮৪, জীবন বিঞ্জান- ৯৩, ইতিহাসে- ৮৬ ও ভুগোলে- ৯৩।

এদিন তন্ময়ে বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় একটি মাত্র ঘর চারধারে দরমার বেড়া, মাটির মেঝে উপরে টিনের ছাউনি। তন্ময়ের ইচ্ছা সে বিজ্ঞান নিয়ে পড়ে ইঞ্জিনিয়ার হবে। তন্ময়ের মা তুলসী নন্দী জানান, আমরা খুব গরীব। ঘরের মধ্যে আমরা যখন ঘুমাতাম তখন লাইট জ্বেলে আমার ছেলে গভীর রাত পর্যন্ত পড়ত। আমারা ওর এই প্রতিভার কাছে হার মেনে ঘুম না হলেও মানা করতাম না। যদি আমার ছেলে ভালো রেজাল্ট করে এই আশায়। কিন্তু এখন কি করে ওকে বিজ্ঞান নিয়ে পড়াব তা ভেবে পাচ্ছি না।

তন্ময় শুধু পড়াশুনার পাশাপাশি ছবি আঁকার হাত খুব ভালো। তন্ময়ের স্কুলের প্রধান শিক্ষক দেবদাস সেন বলেন, মেধাবী ছাত্র যদি বিঞ্জান নিয়ে পড়তে চায়। আমরা সব রকম সাহায্য করব।

Loading...

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

    জানা অজানা

    সাহিত্য / কবিতা

    সম্পাদকীয়


    ফেসবুক আপডেট