চৌরাস্তার মোড় ( প্রথম পর্ব )


মঙ্গলবার,১০/০৯/২০১৯
229

চৌরাস্তার মোড়
এসকেএইচ সৌরভ হালদার

(বাংলাদেশ)

তখন শীতকাল বৃক্ষের পাতা ঝরে মাটিতে লুটিয়ে পড়েছে। গায়ের চাদর মুড়িয়ে আমি তখন মেইন রোডের পাশ দিয়ে হেটে চলেছি।পাশ দিয়ে বিভিন্ন ধরনের গাড়ি চলছে রাতের বেলা গাড়ির আলো দূর থেকে বিভিন্ন রঙের সৃষ্টি হয়েছে খুব মনমুগ্ধকর একটি দৃশ্য।

চৌরাস্তার মোড়ে বট গাছের পাশে আমার বাড়ি।মঙ্গল ঘাট বলিয়া আমাদের ঐ বাড়ীটার নাম দিয়ে দিয়েছেন আমার দাদু আমল ঘোষ । আমি বিশ্ববিদ্যালয় বাংলা বিভাগের একজন ছাত্র।বাংলা বিভাগের ছাত্র বলে নিজেকে একটু অন্যরকমভাবি কারণ বাংলা পড়িয়া অন্য লেখকদের যেরকম একটা অনুভব পায় সেটা নিজের মধ্যে প্রকাশ করতে ইচ্ছে করে। কখন আমি নিজেকে কবি বলিয়া এবং কখনো সাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ ভেবে থাকি।বই পড়তে আমার খুবই ভাললাগে কিন্তু বই পড়ার ভ্যাসটা একটু অন্যরকম আমার কাছে কারণ আমি গভীর রাতে হাতে একটা কপি নিয়ে জানালার পাশে বই পড়ি প্রতিদিন।

প্রতিদিনের মতো আজও আমি বই পড়ছি জানালার পাশে বসে। হাতে এক কাপ কফি। হঠাৎ করে জানালার পাশ থেকে হিমের হাওয়া এসে আমার শরীর শিঁউরে উঠলো। হঠাৎ কিছুক্ষণ পর আমার জানালার পাশ থেকে একটা শব্দ বয়ে আছে যেটা কিনা অদ্ভুত আওয়াজ ।যেন ছিল থরথর করে কাঁপানোর আওয়াজ যেটা শীতকালে সাধারণত হয়ে থাকে। আমি বাইরে আসতে চাইলাম তখনই হঠাৎ করে বিদ্যুৎ চলে গেল। পাশে অন্ধকারে হাত ঠেকিয়ে মোমবাতি এবং দিয়াশলাই দিয়ে মোমবাতীটাকে জ্বালিয়ে বাইরে এসে দেখছি, কিন্তু শীতের হিমের প্রদীপ নিভু নিভু ভাব ‌‌।

আমি রাগ করে প্রদীপটা নিভিয়ে ল্যাম্পপোস্টের কাছে আসলাম কারন ল্যাম্পপোস্টে পাশে একটা বটগাছ তার আড়ালে আমার কক্ষ। আমি কাউকে না দেখতে পেয়ে আমার কক্ষে চলে আসলাম তৎক্ষণাৎ আমার সেই আওয়াজ শুনতে পেলাম ।তখন রাত বারোটা বাজে নিজেকে বিভ্রান্ত মনে করিয়া আমি তখন আবার বই নিয়ে পড়তে যাচ্ছি এবং সেই সময় বিদ্যুৎ চলে আসলো।

তখন আরেকবার জানালার পাশে তাকিয়ে দেখি একটা বৃদ্ধ মহিলা। আমি বাইরে গিয়ে তাকে বললাম

-কে আপনি ? এখানে কি করছে ?

কোন উত্তর পেলাম না তখন তার হাতে হাত রেখে ডাকলাম তখন বৃদ্ধ মহিলা নিম্নস্বরে বলে উঠলো

-কে তুমি বাবা?

আমি বললাম আমি অনুপম বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের ছাত্র পাশে আমার কক্ষ আপনি এখানে কি করছে।

-কে আপনি? আপনার বাসা কোথায় ?

( চলবে …… )

এসকেএইচ সৌরভ হালদার
বাংলাদেশ

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

জানা অজানা

সাহিত্য / কবিতা

সম্পাদকীয়


ফেসবুক আপডেট