মুখ্যমন্ত্রীর সফর ঘিরে খড়্গপুরে প্রশাসনিক তৎপরতা তুঙ্গে


সোমবার,০৯/১২/২০১৯
309

পশ্চিম মেদিনীপুর:- ভোটারদের ধন্যবাদ জানাতে সোমবার খড়্গপুরে আসছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। তাই সেজে উঠেছে রেল নগরী খড়্গপুর। মিশ্র ভাষাভাষীর বাস এই খড়্গপুর মুখ্যমন্ত্রীকে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত। মোড়ে মোড়ে তোরণ, মুখ্যমন্ত্রীর ছবি দেওয়া প্ল্যাকার্ড, হোর্ডিং। ৬ নম্বর জাতীয় সড়ককে ডানদিকে রেখে চৌরঙ্গির কাছে বাঁ–দিকে ঢুকলেই পড়ে খড়্গপুর। ইন্দা, কমলা কেবিন, গোলবাজার, বাসস্ট্যান্ড, মালঞ্চ, গিরিময়দান পেরিয়ে রাবণ পোড়া ময়দান। পুরো মাঠ জুড়েই ছাউনি। সভাস্থলের কাছেই তৈরি হয়েছে হেলিপ্যাড। সোমবার আকশপথে এখানেই নামবেন মুখ্যমন্ত্রী। মঞ্চের চারপাশে রয়েছে কন্যাশ্রী থেকে সবুজসাথী, সমব্যাথী, খাদ্যসাথী প্রকল্পের হোর্ডিং।

টানা ৫ দশক খড়্গপুর বিধানসভা আসনটি দখলে রেখেছিল কংগ্রেস। ২০১৬ সালের বিধানসভা ভোটে এই কেন্দ্র থেকে জয়ী হয় বিজেপি। যদিও এর আগেই খড়্গপুর পুরসভার পুরবোর্ড দখল করেছিল তৃণমূল। বিজেপি বিধানসভা জয়ের পর লোকসভা ভোটেও তৃণমূল প্রার্থীর থেকে ৪৫ হাজার ভোটের ব্যবধানে জয়ী হয়। এর ৬ মাস পর উপনির্বাচনে সেই আসনেই ২০ হাজার ভোটের ব্যবধানে বিজেপি প্রার্থীকে হারিয়ে দেন তৃণমূল প্রার্থী প্রদীপ সরকার। তিনি খড়্গপুরের পুরপ্রধানের পাশাপাশি এখন বিধায়ক। এই লড়াই ছিল মর্যাদার লড়াই। এই আসনে জয় আসায় মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেছিলেন এখানকার ভোটারদের ধন্যবাদ জানাতে আসবেন তিনি।

প্রশাসন সূত্রে খবর, শুধু ভোটারদের ধন্যবাদ জানানোই নয়, পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার উন্নয়নে ৩৬টি প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। সেই সঙ্গে ২৯টি নতুন প্রকল্পের শিলান্যাসও করবেন তিনি। তাঁর হাত ধরে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার জন্য ৩২৫ কোটি টাকার প্রকল্পের উদ্বোধন হতে চলেছে। পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী যে ২৯টি প্রকল্পের শিলান্যাস করবেন, তার জন্য খরচ ধরা হয়েছে ২৩৫ কোটি টাকার। সভা থেকে উপভোক্তাদের পাট্টা, সাইকেল, আবাস যোজনা–সহ নানা প্রকল্পের সুযোগ–সুবিধা বিলি করবেন তিনি। পাশাপাশি পুরসভার উন্নয়নের একগুচ্ছ প্রকল্পের শিলান্যাস ও উদ্বোধন করবেন। তাঁর পাশাপাশি সভায় থাকছেন খড়্গপুর বিধানসভা জেতানোর কারিগর রাজ্যের পরিবহণ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীও৷ মুখ্যমন্ত্রীর সফর ঘিরে প্রশাসনিক তৎপরতা এখন তুঙ্গে।

Loading...

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

    জানা অজানা

    সাহিত্য / কবিতা

    সম্পাদকীয়


    ফেসবুক আপডেট