ফল থেকে সব্জি, সব কিছুরই দাম চড়া লক্ষ্মীপুজোয়,মাথায় হাত ঝাড়গ্রামবাসীর


শুক্রবার,৩০/১০/২০২০
353

ঝাড়গ্রাম:– করোনা ও লকডাউনের কারণে ধাক্কা খেয়েছে উপার্জন। তার উপর গোদের উপর বিষফোড়ার মতো বাজারে ফল, ফুল, সব্জি থেকে প্রতিটি জিনিসের দামই আকাশ ছোঁয়া। যা কিনতে গিয়ে পকেট গড়ের মাঠ হওয়ার জোগাড় গৃহস্থের। তবে ধনদেবীর আরাধনায় কোনওরকম কার্পণ্য করতে রাজি নন বাঙালি। সাধ্যমতো জোগাড় করে লক্ষ্মীপুজোয় মেতে উঠতে চান ঝাড়গ্রামবাসী। তার জন্য ঘরে ঘরে শুরু হয়েছে প্রস্তুতি।শুক্রবার সকাল থেকেই ঝাড়গ্রামের এদিন বিভিন্ন বাজারে ফল, সব্জির দাম ছিল আগুন। এদিন সকাল থেকেই শহরের একাধিক জায়গায় ফল ও ছাঁচের প্রতিমা, চাঁদমালা সহ বিভিন্ন পুজোর উপকরণ কেনার জন্য সাধারণ মানুষ ভিড় করেন। এক ব্যবসায়ী বলেন, ফল, ফুল থেকে শুরু করে প্রতিমা সবকিছুই দাম গতবছরের প্রায় দ্বিগুণ ছিল। কিন্তু, দাম বাড়লেও উপায় নেই। লক্ষ্মীপুজো তো করতেই হবে।

এদিন ঝাড়গ্রাম ফল বাজারে আপেল প্রতিকেজি ৭০ থেকে ৮০ টাকা, নাশপাতি ১৫০ টাকা, নারকেল ৪০ থেকে ৫০ টাকা পিস, কলা ৪০ টাকা ডজন দামে বিক্রি হয়েছে। পানিফল ৬০ টাকা, পেয়ারা ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। ফুলকপি প্রতি কেজি ৮০ টাকা, বাঁধাকপি ৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। এদিন জিনিসপত্রের দাম ঊর্ধ্বমুখী ছিল। এদিন বাজারে নারকেলের দাম অন্য দিনের তুলিনায় ৫ থেকে ১০ টাকা পর্যন্ত বেশি ছিল। দশকর্ম জিনিসেরও বেশ কিছুর দাম চড়া ছিল। এদিন বেদানা ১৪০ টাকা কেজি। কলা ৩০ টাকা ডজন। আপেল ৮০ টাকা কেজি দরে এদিন বিক্রি হয়। কমলালেবু ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। ফলের মতো বেশকিছু সব্জির দামও বেড়েছে। বাঁধাকপি ৫০ টাকা, ফুলকপি ৪০-৫০ টাকা পিস বিক্রি হয়। বেগুন ৪০ টাকা, করলা ৩০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে।দশকর্ম দোকানগুলির পাশে অস্থায়ীভাবে মৃৎশিল্পীরা ছোট, বড়, মাঝারি আয়তনের লক্ষ্মী প্রতিমার পসরা সাজিয়ে বসেন। প্রতিমার দামও গতবারের তুলনায় বেশি ছিল।

বিজ্ঞাপন

Loading...

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

    জানা অজানা

    সাহিত্য / কবিতা

    সম্পাদকীয়


    ফেসবুক আপডেট