“দু’একজন ভুঁইফোড় নেতা কোথায় কি বললেন আর কোথায় কি করলেন তাতে কিছু এসে যায় না”-কাকলি ঘোষ দস্তিদার


শনিবার,১২/১২/২০২০
231

হাওড়া : দু’একজন ভুঁইফোড় নেতা কোথায় কি বললেন আর কোথায় কি করলেন তাতে কিছু এসে যায় না। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বাদ দিয়ে কোনও নেতা পশ্চিমবঙ্গে কিছু করতে পারবেন না। হাওড়ার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বললেন সাংসদ ডাঃ কাকলি ঘোষ দস্তিদার।

দু’একজন ভুঁইফোড় নেতা কোথায় কি বললেন আর কোথায় কি করলেন তাতে কিছু এসে যায়না। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বাদ দিয়ে কোনও নেতা পশ্চিমবঙ্গে কিছু করতে পারবেন না। হাওড়ার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বললেন সাংসদ ডাঃ কাকলি ঘোষ দস্তিদার। শনিবার সকালে পশ্চিমবঙ্গ বঙ্গ জননী বাহিনীর হাওড়া সদরের জেলা সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় দাশনগরের আলামোহন দাস ইন্ডোর স্টেডিয়ামে। সেখানে উপস্থিত হয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দেন সাংসদ ডাঃ কাকলি ঘোষ দস্তিদার। শুভেন্দু অধিকারী, রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের পোস্টার সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে কারও নাম না নিয়ে কাকলিদেবী বলেন, “টাকা থাকলে অনেক পোস্টার ছাপানো যায়। তাদের হয়তো অনেক টাকা। তাই তাঁরা পোস্টার ছাপাচ্ছেন। আমরা তো এতো পোস্টার লাগাতেও পারিনা। ছাপাতেও পারিনা। যারা একসঙ্গে এ ধরণের কাজকর্মে লিপ্ত, তাঁরা যদি মনে করেন তাঁদের ছাড়া চলবে না তাহলে তাঁরা ভুল ভাবছেন। তৃণমূল কংগ্রেসের একমাত্র সম্পদ আমাদের নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ভোট যা হবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নামেই হবে। মানুষ ভোট দেবেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে মানুষ আছেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মানুষের সঙ্গে আছেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আমাদের দলের সম্পদ।

তৃণমূলস্তরের প্রতিটি কর্মী আমাদের সঙ্গে রয়েছেন। সুতরাং দু’একজন ভুঁইফোড় নেতা কোথায় কি বললেন আর কোথায় কি করলেন তাতে কিছু এসে যায়না। ওনারা জানেন না মানুষ ওদের চেনেন ভালবাসেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্য। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বাদ দিয়ে কোনও নেতা পশ্চিমবঙ্গে কিছু করতে পারবেন না।” তিনি আরও বলেন, “রাজনৈতিক দল থাকলে কারও সঙ্গে কারও মতানৈক্য হতেই পারে। সেটা আবার মিটেও যায়। এটা নিয়ে বিজেপির কোট করার মতো বা উৎফুল্ল হওয়ার কিছু নেই। ২০২১ এর বিধানসভা নির্বাচনে বিপুল জনসমর্থন নিয়েই তৃতীয়বারের জন্য আমাদের দল ক্ষমতায় আসবে। মুখ্যমন্ত্রী হবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।” বিজেপিকে হিংসাশ্রয়ী দল হিসেবে ব্যাখ্যা করে কাকলিদেবী বলেন, “যেনতেন প্রকারে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারকে ওরা হেয় করতে উঠেপড়ে লেগেছেন।” কাকলিদেবী বলেন, “এই রাজ্যে মহিলারা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গেই রয়েছেন। আমরা নিশ্চিতভাবে বঙ্গ জননী বাহিনী মহিলাদের কাছে যাব। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মহিলাদের স্বশক্তিকরণের জন্য, নারীদের ক্ষমতায়নের জন্য যে কাজ করেছেন সেগুলো তাঁদের বোঝাব। যা মহিলারা উপলব্ধি করবেন। মহিলারা নির্বাচনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশেই থাকবেন।” এদিনের হাওড়া সদর জেলা সম্মেলনে রাজ্যের মন্ত্রী তথা তৃণমূল কংগ্রেসের হাওড়া জেলা সদর সভাপতি লক্ষ্মীরতন শুক্লা, বঙ্গ জননী বাহিনীর হাওড়া জেলা সদরের সভানেত্রী দীপান্বিতা ঘোষ, প্রাক্তন মেয়র পারিষদ বিভাস হাজরা সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন

Loading...

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

    জানা অজানা

    সাহিত্য / কবিতা

    সম্পাদকীয়


    ফেসবুক আপডেট