খিচুড়ি ভোগ খেয়ে অসুস্থ অনেকে। হাওড়ার ডোমজুড় গ্রামীণ হাসপাতালে ভর্তি ১৩ জন।


শুক্রবার,০৮/০১/২০২১
339

শ্রী শ্রীসারদা মায়ের জন্মতিথি পালন অনুষ্ঠানের ভোগ প্রসাদ খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন অনেকে। হাওড়ার মাকড়দহের একটি মঠের অনুষ্ঠানে প্রতি বছরই কয়েক হাজার মানুষ যোগ দেন। এই বছর কোভিড পরিস্থিতিতে সেই সংখ্যা কম হয়। অন্যান্য বছরে বসে প্রসাদ খাওয়ার ব্যবস্থা থাকলেও এই বছর কোভিডের কারণে প্রসাদ বসিয়ে খাওয়ার বদলে প্যাকেট করে পার্সেল দেওয়ার ব্যবস্থা করেছিলেন মঠ কর্তৃপক্ষ। গত মঙ্গলবার রাতে সেই প্রসাদ খাওয়ার পর থেকেই পেটের সমস্যা শুরু হয় অনেকের। বুধবার এদের মধ্যে অনেকে স্থানীয় চিকিৎসকের কাছে গেলেও অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় বৃহস্পতিবার রাত থেকেই ডোমজুড় গ্রামীণ হাসপাতালে ভর্তি হন অনেকে। বর্তমানে শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত ওই হাসপাতালে ১৩ জনের চিকিৎসা চলছে। গত মঙ্গলবার ছিল শ্রীশ্রীসারদা মায়ের ১৬৮তম জন্মতিথি উৎসব। হাওড়ার মাকড়দহের ওই মঠে সেই উৎসব উপলক্ষে খিচুড়ি ভোগ দেওয়া হয়েছিল। সেই প্রসাদ খেয়ে রাত থেকেই অসুস্থ হয়ে পড়েন অনেকে। পায়খানা, বমি সহ নানা উপসর্গ দেখা যায়। এদের মধ্যে ১৩ জনকে ডোমজুড়ের গ্রামীণ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের বাড়িতেই চিকিৎসা চলছে।

খিচুড়ি ভোগ খেয়ে অসুস্থ অনেকে। হাওড়ার ডোমজুড় গ্রামীণ হাসপাতালে ভর্তি ১৩ জন।

এলাকায় পৌঁছে গিয়েছেন স্বাস্থ্যকর্মীরা। ওআরএস, মেট্রোজিল থেকে শুরু করে ওষুধপত্র দেওয়া হয়েছে তাদের। সকলের শারীরিক অবস্থা পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। যাদের অসুস্থতা বেশি তাদের আনা হচ্ছে গ্রামীণ হাসপাতালে। মহিলা, পুরুষ, বয়স্ক মিলিয়ে অনেকেরই চিকিৎসা চলছে ডোমজুড় গ্রামীণ হাসপাতালে। হাসপাতালে স্যালাইনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। জানা গেছে, প্রায় আড়াই’শ মানুষের ভোগ প্রসাদের পার্সেলের ব্যবস্থা করা হয়েছিল। খিচুড়ি, শাকের তরকারি, পায়েস, মিষ্টি ভোগ প্রসাদ হিসাবে দেওয়া হয়েছিল। যা খেয়ে ভোররাত থেকেই একে একে গ্রামের অনেক মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়েন।

Loading...

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

    জানা অজানা

    সাহিত্য / কবিতা

    সম্পাদকীয়


    ফেসবুক আপডেট