বাড়ি বাড়ি গিয়ে নির্বাচনী প্রচার করছেন শালবনির বিধায়ক শ্রীকান্ত মাহাতো


মঙ্গলবার,০২/০৩/২০২১
550

নির্বাচনের দিন ঘোষণা হয়েছে প্রথম পর্বের নির্বাচন হবে ২৭ মার্চ। মঙ্গলবার থেকে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার কাজ শুরু হয়েছে। তবে তৃণমূল কংগ্রেস এখনো পর্যন্ত প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করেনি। তা সত্ত্বেও চুপ করে বসে থাকতে চাননি শালবনির বিধায়ক শ্রীকান্ত মাহাতো। মঙ্গলবার শালবনি ব্লকের লালগেড়িয়া অঞ্চলের মাহাতো পুর গ্রামে গিয়ে গ্রামবাসীদের সঙ্গে নিয়ে তিনি প্রথমে ওই গ্রামের গরাম থানে পুজো দেন। এরপর স্ত্রী অঞ্জনা মাহাতো কে সঙ্গে নিয়ে বাড়ি বাড়ি গিয়ে নির্বাচনী প্রচার করেন বিধায়ক শ্রীকান্ত মাহাতো। তিনি গ্রামবাসীদের বলেন দেশ বাঁচাতে দরকার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার। খাদ্যসাথী ,স্বাস্থ্যসাথী, কন্যাশ্রী প্রকল্পের জন্য প্রয়োজন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার। বিনামূল্যে চাল এর জন্য প্রয়োজন মমতার সরকার।

তিনি গ্রামবাসীদের বলেন আপনারা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশে থাকুন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আপনাদের পাশে রয়েছে। তিনি বিজেপির পাশাপাশি বাম কংগ্রেস জোট এর তীব্র সমালোচনা করেন। তিনি গ্রামবাসীদের বলেন হার্মাদদের ফিরিয়ে আনবেন না ।যারা একসময় হার্মাদ ছিল তারা এখন বিজেপির নেতা হয়েছে। সিপিএম বিজেপি একসঙ্গে মিলে তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে কুৎসা অপপ্রচার করছে এর বিরুদ্ধে আপনারা রুখে দাঁড়ান। তিনি আরো বলেন যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় উন্নয়নের মাধ্যমে জঙ্গলমহলের শান্তি প্রতিষ্ঠা করেছে। সেই শান্তি ও উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখবেন। সেই সঙ্গে তিনি গ্রামবাসীদের বলেন গত দশ বছর ধরে তিনি বিধায়ক থাকাকালীন কি কি কাজ করেছেন তাও তিনি বিস্তারিতভাবে গ্রামবাসীদের জানান।

তিনি আরও বলেন দল যাকে প্রার্থী করবে তার হয়ে সকলকে কাজ করতে হবে। আমরা কেউ দলের বিরুদ্ধে নই ।তাই জননেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যাকেই দলের প্রতীক দিবেন তার হয়ে সকলে কাজ করবেন ।এরপর তিনি চলে যান শালবনি বিধানসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত মেটালা এলাকায় ।সেখানেও বাড়ি বাড়ি গিয়ে তিনি প্রচার করেন। তিনি বলেন বাংলায় শান্তি ও উন্নয়নের জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে তৃতীয়বার মুখ্যমন্ত্রী করার জন্য সকলকে এক হয়ে কাজ করতে হবে। তাই বিধানসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে বাড়িতে বসে না থেকে সকলকে বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রচার করার জন্য তিনি নির্দেশ দেন।

Loading...

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

    জানা অজানা

    সাহিত্য / কবিতা

    সম্পাদকীয়


    ফেসবুক আপডেট