এবার গঙ্গা এবং খাল সংস্কারে বিশেষ উদ্যোগ নিল রাজ্য সরকার


সোমবার,০৭/০৬/২০২১
285

এবার গঙ্গা এবং খাল সংস্কারে বিশেষ উদ্যোগ নিল রাজ্য সরকার। বিশেষজ্ঞ কমিটি তৈরি করে তা সংস্কারের ভাবনাচিন্তা করা হচ্ছে। গঙ্গাকে কীভাবে পরিষ্কার রাখা যায়, সে বিষয়ে ওই বিশেষজ্ঞ কমিটি পরিকল্পনা তৈরি করবেন বলেই জানিয়েছেন মু্খ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ভাঁটার সময় আদিগঙ্গায় বয়ে যায় কালো জল। যা দেখে রীতিমতো বিরক্ত মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এছাড়া মরা পশু, নানা ধরনের আবর্জনা ভেসে আসাও নিত্যদিনের বিষয়। মুখ্যমন্ত্রীর দাবি, তার ফলে বছরের পর বছর খাল সংস্কারের কাজ করা হলেও জল জমে বিপাকে পড়েন শহর কলকাতার একাধিক এলাকার বাসিন্দারা। সামান্য বৃষ্টিতেও ভেসে যায় ওই সব এলাকা। বর্ষার সময় সে সমস্যা যে আরও কয়েকগুণ বাড়ে, তা নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই। এই পরিস্থিতিতে খাল এবং আদিগঙ্গা সংস্কারের উদ্যোগ নিল রাজ্য সরকার। সোমবার কলকাতা পুরসভার প্রশাসনিক প্রধান তথা রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের কাছ থেকে খাল এবং গঙ্গা সংস্কার সংক্রান্ত তথ্য চান মুখ্যমন্ত্রী। গত ৩৪ বছরে পরিকল্পনা নেওয়া হলেও তার বাস্তবায়ন হয়নি বলেই দাবি করেন ফিরহাদ হাকিম। এরপরই পূর্ত দপ্তরের ইঞ্জিনিয়ারদের নিয়ে পরিস্থিতি খতিয়ে দেখে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সৎ ইঞ্জিনিয়ারদের নিয়ে দ্রুত কাজ শুরুর নির্দেশ দেন তিনি।

নবান্নের সভাঘরে এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্যও। বৈঠকে উঠে আসে কলকাতা যমজ শহর হাওড়ার প্রসঙ্গও। অল্প বৃষ্টিতেই হাওড়ার যেসব এলাকা জলমগ্ন হয়ে পড়ে, সেদিকে নজর দেওয়ার নির্দেশ দেন মুখ‍্যমন্ত্রী। বারাকপুরের পরিস্থিতিও তথৈবচ বলেই তিনি জানান। সেকথা শোনার পরই বারাকপুর ও হাওড়ার জন্য পৃথক দু’টি মাস্টারপ্ল্যান তৈরির কথা বলেন মুখ্যমন্ত্রী। তবে সংস্কারের আর্থিক জোগান কীভাবে হবে, সে বিষয়ে ভাবনাচিন্তা করার কথাও বলেন তিনি। অনেক সময় বহু স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন এই সমস্ত উদ্যোগে সহযোগিতার হাত বাড়ায়। তাই অর্থের জোগানের ক্ষেত্রে ওই সমস্ত স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার কাছে আরজি জানানোর নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

Loading...

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

    জানা অজানা

    সাহিত্য / কবিতা

    সম্পাদকীয়


    ফেসবুক আপডেট