সামান্থার নজরকাড়া ফিটনেসের রহস্য কী ?


বুধবার,১৫/০৩/২০২৩
284

ভারতীয় দক্ষিণী ছবির সুপারস্টার সামান্থার নজরকাড়া ফিটনেসের রহস্য কী ? জলের মতো সহজ উত্তরটি জানেন ক’জনে ? আরেকটি কথা – দক্ষিণী তারকা হলেও বলিউডে কিন্তু সামান্থা রুথ প্রভুর জনপ্রিয়তা কম নয়। ‘ফিটনেস ফ্রিক’ অভিনেত্রী হিসেবে বলিউডের বাকি নায়িকাদের সঙ্গে তার নামটিও উচ্চারিত হয়। কিন্তু ঘুরেফিরে সবার একই প্রশ্ন – কীভাবে নিজেকে এত ফিট রাখেন সামান্থা ?

ভারতীয় গণমাধ্যম থেকে জানা যায়, অভিনয়ের পাশাপাশি শরীরচর্চা নিয়ে অত্যধিক সচেতন সামান্থা রুথ প্রভু। এটা প্রমাণ পাওয়া যায় তার ইনস্টাগ্রামে। মাঝেমাঝেই নিজের শরীরচর্চার ভিডিও ইনস্ট্রায় অনুরাগীদের সঙ্গে ভাগ করে নেন এই অভিনেত্রী। তিনি মনে করেন – নায়িকা মানেই তাকে ভিতর থেকে ফিট থাকতে হবে, এমনটাই দস্তুর। কিন্তু নিজের যত্ন নেওয়া সহজ নয়। অনেক নিয়ম মেনেও সফল হন না অনেকে। কিন্তু সামান্থা এ বিষয়ে অনেকটাই এগিয়ে। তিনি যে ফিট থাকতে যথেষ্ট পরিশ্রম করেন, সেটা কিন্তু তাকে দেখলেই বোঝা যায়। জিমে কিংবা বাড়িতে, নিয়ম করে শরীরচর্চা তিনি করেনই। তবে তার এই মেদহীন চেহারার নেপথ্যে একমাত্র শরীরচর্চার অভ্যাস লুকিয়ে নেই। বেশ কিছু সাক্ষাৎকারে সামান্থা নিজেই জানিয়েছিলেন, প্রচুর জল খান তিনি। কারণ, শরীর আর্দ্র না রাখলে ফিট থাকার বাকি সব চেষ্টাই বিফল হবে।

জানা যায়, সামান্থা রোজ সকালে উঠে এক কাপ গরম জলে চুমুক দেন। এতে নাকি তার শরীরে জমে থাকা যাবতীয় টক্সিন বাইরে বেরিয়ে যায়। অনেকেই শরীরচর্চার পর জল খেতে ভুলে যান। এই অভ্যাস খারাপ বলেই মনে করেন তিনি। শরীরচর্চার সময় প্রচুর ঘাম বেরিয়ে যায় শরীর থেকে। শরীরে জলের পরিমাণ পর্যাপ্ত রাখতে তাই তেষ্টা না পেলেও শরীরচর্চার পর জল খাওয়া খান সামান্থা।

আরেকটি কথা – শক্ত কোনও খাবারের চেয়ে তরল খাবার খেতেই বেশি পছন্দ করেন সামান্থা। স্মুদি, ডিটক্স পানীয়ের উপরেই ভরসা রাখেন বেশি। যে ফল এবং সব্জিতে জলের পরিমাণ বেশি, সেগুলি দিয়েই স্মুদি বানিয়ে খান তিনি। তার অন্যতম প্রিয় স্মুদির প্রধান উপকরণ হল টমেটো। এছাড়াও শসা, ডাবের জল, তুলসী পাতা, বিটনুন, গোলমরিচ, অলিভ অয়েল এবং চিয়া বীজ – এই উপকরণগুলো একসঙ্গে মিশিয়ে তৈরি হয় সামান্থার প্রিয় স্মুদি। সারা দিন চনমনে থাকতে অ্যান্টি – অক্সিড্যান্টে সমৃদ্ধ এই পানীয়ে সকালে চুমুক দেন তিনি। এই পানীয় রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতেও সাহায্য করে। 

Loading...
https://www.banglaexpress.in/ Ocean code:

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

    জানা অজানা

    সাহিত্য / কবিতা

    সম্পাদকীয়


    ফেসবুক আপডেট