বিরাট কোহলি তামিমের কাছে ব্যাট চেয়েছিলেন


রবিবার,০২/০৮/২০১৫
412

 খবরইন্ডিয়াঅনলাইনঃ   তিনি ব্যাটসম্যান, ব্যাট দিয়েই ক্যারিয়ার গড়েন, তাই ব্যাটের প্রতি তামিমের দুর্নিবার আকর্ষণ থাকাটাই স্বাভাবিক। তবে তাঁর নিজের কাছে ব্যাটের প্রতি মমত্বটা অস্বাভাবিক পর্যায়েরই। বললেন,‘বুট, জার্সি কিংবা গ্লাভস- কোনোটার প্রতিই আমার অত আকর্ষণ নেই, যতটা ব্যাটের বেলায়।’

তামিম বরাবরই ব্যাট চিনতে জহুরী। সিএ কোম্পানি তার জন্য বিশেষ যত্ন করে ব্যাট বানায়। যা অন্য কোনো ক্রিকেটারের জন্য তারা করে না। তামিমের ব্যাট দেখে একবার মুগ্ধ হয়েছেন বিরাট কোহলি। এতটাই মুগ্ধ হন যে, তামিমের কাছে একটি ব্যাট চেয়ে বসেন তিনি!

সব ফরম্যাট মিলিয়ে আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে ৮ হাজারেরও বেশি রান করে ফেলা তামিমের ব্যাটের দামটাই সেই রকম, ‘আমার ব্যাট স্পন্সর সিএ খুব নামি কোম্পানি। ওদের সেরা ব্যাটটির দাম প্রায় ৩২ হাজার টাকা। তবে আমার ব্যাটের দাম ঠিক কত, সেটা জানি না। আমার জন্য বিশেষ যত্ন সহকারে ব্যাট তৈরি করে সিএ, যা বাজারে পাওয়া যায় না।’

সিএ তো অনেক ক্রিকেটারেরই স্পন্সর। বিশ্বের অনেক নামি ক্রিকেটারই আছেন যারা ব্যাটে স্পন্সরের স্টিকার ব্যবহার করলেও খেলেন অন্য প্রতিষ্ঠানের ব্যাট দিয়ে। তামিমকে সে লুকোচুরি খেলতে হয় না, ‘আমি যেমন ব্যাট চাই, সিএ আমাকে ঠিক সেরকম ব্যাটই বানিয়ে দেয়। প্রতিষ্ঠানটির মালিকের সঙ্গে আমার সম্পর্কটা পরিবারের মতো। সম্ভবত সে কারণেই সুবিধাটা পাই।’ নিজের পছন্দের ব্যাটটা খুঁজে পেতে পাকিস্তানেও দুইবার ঘুরে এসেছেন তামিম, ‘দুইবার পাকিস্তানে সিএ-র কারখানা পর্যন্ত গিয়েছিলাম। ব্যাটের উচ্চতা, ভারসাম্য আর সুইটপার্ট  কী হবে, সেটা হাতেকলমে দেখিয়ে এসেছি। ২০১১ বিশ্বকাপের আগে শেষবার গিয়েছিলাম। ওরা জেনে গেছে, তাই এখন আর যেতে হয় না।’ ব্যাটটা পছন্দসই হলো কি না, সেটি সব ব্যাটসম্যানই যাচাই করে দেখেন। তবে এর ভিন্নতা আছে। যেমন তামিমই জানিয়েছেন, ‘সাকিব যেমন সোজা নতুন ব্যাট নিয়ে মাঠে নেমে পড়ে। মুশফিক আবার নেটে প্রায় এক মাস প্র্যাকটিসের পর নতুন ব্যাট নিয়ে ম্যাচ খেলে। আমার ক্ষেত্রে ব্যাপারটা মাঝামাঝি, এক-দুদিন নেটে দেখে ম্যাচ খেলি।’

Loading...

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

    জানা অজানা

    সাহিত্য / কবিতা

    সম্পাদকীয়


    ফেসবুক আপডেট