অথ পদ্মাবতী কথা


বৃহস্পতিবার,০১/০২/২০১৮

রক্তকরবী:

আবারও একবার ইতিহাসের পাতা ওল্টানো । দেশে দিশে নানা বিতর্কের ঝড় তুলে, কিছু জনের মনের আবেগের দো’রে নাড়া দিয়ে, মালিক মুহম্মদ জয়সী রচিত ‘পদুমাবৎ’ কাব্যের পটে সঞ্জয় লীলা বানসালীর চলচ্চিত্র…’পদ্মাবৎ’ । সিংহল কন্যা, চিতোরের রাণী পদ্মিনী ( পদ্মাবতী ) র চোখ ধাঁধানো রূপকে উপজীব্য করে রাওয়াররানা রতন সিং আর তুর্কি সুলতান আলাউদ্দিন খিলজির কলজের লড়াই এ’ ছবির পটভূমি ।

ঐশ্বর্যের জাঁকজমকপূর্ণ দৃশ্যমানতা থাকলেও, ছবিটির চলমানতায় গতির অসংগতি রয়েছে যা মনে খানিক ‘না’ এর অনুভূতি জাগায় । নানা মুনির নানা মতে যদি এমনই চর্চিত হয় যে ইতিহাসের মাটি খুঁড়ে আলাউদ্দিন খিলজির অস্তিত্ব সন্দেহাতীত কিন্তু রাণী পদ্মিনী কবির অলীক কল্পনা কারণ মধ্যযুগীয় ভারতের দস্তাবেজে তার অস্তিত্বের তেমন প্রামাণ্য নথি নেই (!), তবে চলচ্চিত্র নির্মাণের ক্ষেত্রে ইতিহাস বিকৃতির অভিযোগ ধোপে টেঁকে না…আর সতীত্ব রক্ষার জন্য হিন্দু নারীর ‘জহর’ এ আত্মাহুতি, এ’ও তো আমাদের সংস্কৃতির বাইরের কথা নয় !

সমাজের রক্ষণশীলতার ধুয়ো তুলে, মধ্যযুগীয় ঘরানায় জনসমক্ষে রাণী পদ্মাবতীর ‘ঘুমর’ নাচ অবশ্য খানিক বেমানান লাগে । চলচ্চিত্রটিতে সুলতানের সঙ্গে রাণী পদ্মিনীর প্রেমের আখ্যানের প্রতিফলন অনুভব করি নি । তবে একটা সঙ্গত প্রশ্ন হল, কামনা চরিতার্থ করার জন্য সুলতান আলাউদ্দিনের অতখানি খলমনস্কতা ( যা রূপায়িত হয়েছে চলচ্চিত্রে ) কি ইতিহাসে প্রশ্রয় পেয়েছিল না কি বক্স অফিসের সাফল্যের ওজরে এমন উপস্থাপন ?…কিছু কিছু অতিনাটকীয়তা বাদ দিলে শিল্পী রণবীর সিং খিলজি চরিত্রের চিত্রায়নে সফলতম !

অকুণ্ঠ অভিনন্দন শিল্পী শাহীদ কাপুরকে রাণা রতন সিং এর চরিত্রে মনকাড়া, মার্জিত অভিনয়ের জন্য । আধুনিকতার মোড়কে রাণী পদ্মাবতীর ভূমিকায় দীপিকা পাড়ুকন প্রশংসনীয় । আর নজর কাড়ে সুলতানের একান্ত সঙ্গী মালিক কাফুরের চরিত্রে জিম সারভের অভিনয় । মেহেরুন্নিসার উদার চরিত্রায়নে অদিতি রাও হায়দারী প্রশংসার দাবী রাখে । সব মিলে ইতিহাস ছুঁয়ে তর্ক বিতর্কের উত্থাপনে এমন চলচ্চিত্র নির্মাণের সাহসী চর্চার জন্য সাধুবাদ জানাই স্বনামধন্য পরিচালককে ।

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

জানা অজানা

সাহিত্য / কবিতা

সম্পাদকীয়


ফেসবুক আপডেট