আজ জমি কমিটির মিছিলে নজর প্রশাসনের


রবিবার,০৮/০৭/২০১৮
364

কাজী হাফিজুল---

ভাঙড় আন্দোলনের কাণ্ডারী অলীক চক্রবর্তী এখন পুলিশ হেফাজতে আর অন্য দিকে আদালতের নির্দেশে ভাঙড়ে প্রবেশ নিষেধ আন্দোলনের অন্যতম নেত্রী শর্মিষ্ঠা চৌধুরীর। ভাঙড় আন্দোলনের দুই মাথা এই প্রথম জমি কমিটির বৃহৎ কর্মসূচির বাইরে। এই পরিস্থিতিতে রবিবার মহা মিছিলের ডাক দিয়েছেন পাওয়ার গ্রিড বিরোধী আন্দোলনের বর্তমান নেতৃত্ব। এই মিছিল ভাঙড়ে তাঁদের নিজেদের কাছে বড় পরীক্ষা। পরীক্ষা অন্যদের কাছে শক্তি প্রদর্শনেরও। আর এই পরীক্ষায় তাদের খর্ব করানোই লক্ষ্য জেলা প্রশাসন তথা শাসক দল তৎপর ।

অলীক ও শর্মিষ্ঠা দুই নেই। আন্দোলনের প্রধান এবং বহিরাগত দুই মুখের অনুপস্থিতিতে পাওয়ার গ্রিড বিরোধীদের বড়সড় কোনও সফল জমায়েত মানেই প্রশাসন ও সরকারের চরম ব্যর্থতা। কিন্তু অলীক ধরা পড়ার পর এলাকায় কোনও হিংসাও চাইছে না সরকার। লোকসভা ভোটের আগে ভাঙড় অশান্তির কারণে ফের দেশের মানচিত্রে জায়গা করে নিক, এমনটা একেবারেই চাইছেন না সরকার তথা প্রশাসনের সর্বময় নেতৃত্বরা ।
এই পরিস্থিতিতে এলাকার মানুষের মধ্যে আস্থা অর্জন করতে সক্রিয় প্রশাসন। গত মাস থেকে ওই এলাকায় মানুষ জনকে নানা সরকারি প্রকল্পের সুযোগ সুবিধা পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু তাতে কতটা কাজ হয়েছে, তা নিয়ে প্রশাসন নিজেও নিশ্চিত নয়। ফলে মিছিলের দিন, রবিবার হওয়া সত্ত্বেও সরকারি কর্মসূচির কথা ঘোষণা করা হয়েছে। স্থানীয় মানুষের কাছে এদিন সরকারি সুযোগ সুবিধা তুলে দিতে উপস্থিত থাকবেন জেলার প্রশাসনিক কর্তারা। একই দিনে প্রশাসন ও জমি কমিটির দুই কর্মসূচি কে কেন্দ্র করে উত্তেজনার পারদ চড়ছে পাওয়ার গ্রিড এলাকায়। এরই মধ্যে সরকারি প্রকল্পের সুযোগ সুবিধায় অনিয়মের অভিযোগে পঞ্চায়েত অফিসে তালা লাগিয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছেন আন্দোলনকারীরা।

জমি জীবিকা বাস্তুতন্ত্র ও পরিবেশ রক্ষা কমিটির যুগ্ম সম্পাদক মোসারেফ হোসেন বলেন, “অলীক চক্রবর্তী সহ অন্য আন্দোলনকারীদের নিঃশর্ত মুক্তি, পাওয়ার গ্রিড প্রত্যাহার ও মিথ্যা মামলা খারিজ সহ বিভিন্ন বিষয়ে দাবি তোলেন ।”

তৃণমূল নেতা হবিবর বিশ্বাস কে ফোন করা হলে ও কোন প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি । এখন শুধু দেখার মিছিলটা কতটা সফল হয় !

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

জানা অজানা

সাহিত্য / কবিতা

সম্পাদকীয়


ফেসবুক আপডেট