শ্রীমতির নদীর প্রাণ ফেরাতে নদী বাঁচাও কমেটির ডাক


রবিবার,০৮/০৭/২০১৮
108

পিয়া গুপ্তা---

সময়ের বিবর্তনে আমাদের নদীগুলো এখন হারিয়ে যেতে বসেছে, তাদের হাজার হাজার শাখা নদী ও খাল বিলে এখন জল নেই। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে চর পড়ে গেছে, অনেক স্থানে নদী ও খাল ভরাট করে মানুষ চাষাবাদ করছে। নদীর নাব্যতা হ্রাস পাওয়ায় নদীর গতি ও হারিয়ে গেছে। বর্তমানে নদীনালা খাল বিল ও  পর্যাপ্ত জল না থাকায় ভূগর্ভস্থ জলের স্তরও নিচে নেমে যাচ্ছে। ফলে গাছ পালার বেঁচে থাকা অসম্ভব হয়ে পড়ছে এবং পরিবেশ তার ভারসাম্য হারাচ্ছে। এটি মরুপ্রক্রিয়ারই একটি অংশ এবং এ অবস্থা চলতে দেয়া যায় না বলে আমাদের বিশ্বাস।

এদিন নদী বাঁচাও কমেটির উদ্যোগে নদী কে বাঁচাতে সাধারণ মানুষকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানানো হল।নদী ও পরিবেশকে রক্ষার তাগিদে উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জে নদী ও পরিবেশ বাচাও কমিটির উদ্যোগে নদী ও পরিবেশ সম্পর্কীয় আলোচনা চক্রের আয়োজন করা হয় শহরের পার্বতী সুন্দরী উচ্চ বিদ্যালয়ে। এদিনের মূখ্য আলোচ্য বিষয় ছিল কালিয়াগঞ্জের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া শ্রীমতী নদী। এই নদী এক সময় নদী ছিল কিন্তু এখন এই নদী প্রায় বিলুপ্তের পথে। এই নদীকে পূনজীবন দেওয়া যায় কিভাবে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ধরনের আলোচনা চক্রের আয়োজন করা হয়। কালিয়াগঞ্জের শ্রীমতি নদী এখোন চুরির মুখে ও বিক্রির মুখে ।কারন কিভাবে এই নদী কারো রায়োতি জমিতে পরিনত হয় তা কারো জানানেই। এই সব বিষয় গুলি নিয়ে আলোচনা হয় কিভাবে শ্রীমতী নদীকে বাঁচানো যায় ।

এদিনের আলোচনা চক্রে উপস্থিত ছিলেন কালিয়াগঞ্জ পুরসভার পুরপ্রধান কার্তিক পাল, বালুঘাটের বিশিষ্ট পরিবেশ বিদ তুহীন শুভ্র মন্ডল ও শিলিগুড়ির বিশিষ্ট পরিবেশ বিদ অশেষ দাস, পরিবেশ বিদ ডাঃ জয়ন্ত ভট্টাচার্য, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নন্দন কুমার সাহা,নদী ও পরিবেশ বাচাও কমেটির সভাপতি তপন চক্রবর্তী ও যুগ্ম সম্পাদক স্বপন ভ্রক্ষ্ম ও প্রসুন দাস।এদিন কালিয়াগঞ্জ পুরসভার পুরপ্রধান কার্তিক পাল জানান, কালিয়াগঞ্জের শ্রীমতি নদী কি ভাবে বাচানো যায় তা নিয়ে নানা ধরনের উদ্যোগ গ্রহন করা হচ্ছে। এই নদী এক সময়ে নদী রুপে ছিল দিনের পর দিন এই নাব্যতা হারিয়ে ফেলেছে। এই নদী বিক্রি হয়েছে কিংবা রায়োতি জমিতে পরিনত হল কিভাবে তা কারো জানা নেই। তাই শুধু প্রশাসন কে এগিয়ে আস্তে হবে শ্রীমতী নদীকে তার পূনরায় তার পরিচয়ে ফিরিয়ে আনা যায।

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

জানা অজানা

সাহিত্য / কবিতা

সম্পাদকীয়


ফেসবুক আপডেট