“রাজা ভাত খাওয়া” নামকরণের ঐতিহাসিক কাহিনী


বুধবার,১০/০৭/২০১৯
2085

পশ্চিমবঙ্গের নবনির্মিত জেলা আলিপুরদুয়ার। আলিপুরদুয়ারের একটি স্থানের নাম “রাজা ভাত খাওয়া”। এই জায়গার নাম “রাজা ভাত খাওয়া” কেন হয়েছে তা আমাদের অনেকেরই অজানা।

কোচবিহারের রাজা ধৈর্য্যেন্দ্রনারায়ন ভুটান সেনাপতি পেনশু তোমা হাতে বন্দী হন। বন্দী রাজাকে প্রথমে বক্সা ও পরে তৎকালীন ভুটান রাজধানী পুনাখাতে বন্দী করে রাখা হয়। ইষ্টইন্ডিয়া কোম্পানীর যৌথ সেনাবাহিনী কোচবিহারের সমস্ত ভুটানি সেনা ঘাঁটি ভেঙে দেয়। যুদ্ধের পর রংপুরের কালেক্টর পারলিং ভুটান রাজাকে চিঠি লিখে জানান রাজা ধৈর্য্যেন্দ্রনারায়নকে মুক্তি না দিলে ইংরেজ সৈন্যরা ভুটান রাজধানী দখল করবে। এরপর রাজা ভুটান থেকে মুক্তি পেয়ে বক্সার পথে কোচবিহার যান। রাজার মুক্তির আনন্দে রাজপুরুষগণ রাজাকে অভ্যর্থনা জানাতে বক্সায় যায় এবং এইখানেই চেকাখাতার কাছে রাজার প্রথম অন্নগ্রহনের ব্যবস্থা করেন। বহুদিনের পর স্বদেশে ফিরে এই স্থানে রাজা ভাত খেয়েছিলেন। এই ঘটনার পর থেকেই লোকমুখে এই স্থানের নাম হয় রাজাভাতখাওয়া। বর্তমানে রাজাভাতখাওয়া আলিপুরদুয়ারের একটি অন্যতম স্থান ও রাজাভাতখাওয়া একটি উল্লেখযোগ্য রেলওয়ে স্টেশনও।

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

জানা অজানা

সাহিত্য / কবিতা

সম্পাদকীয়


ফেসবুক আপডেট