ইলিশ বাঁচাতে পাহাড় থেকে সাগর মিলল দিঘা মোহনায়


মঙ্গলবার,১৫/১২/২০২০
1870

স্মৃতি সামন্ত: হিমালয়ের পাদদেশ মেঘালয়ের গারো পাহাড় এসে পদনত হল সমুদ্রের বুকে।এ যেন এক ভালবাসার সন্ধিক্ষণ।পাহাড়ের সাথে সম্পর্ক নেই ইলিশের।তবুও ভালোবাসা উজাড় করে দিল পাহাড় সমুদ্রের কাছে।

দিঘা ,শংকরপুর ,তাজপুর ,ডায়মন্ড হারবার, নৈনান ,কালীস্থান, কাকদ্বীপ, নামখানা, ফ্রেজারগঞ্জ এসে মিলিত হল ইলিশের ঝাঁকে।খোকা ইলিশ বাঁচাতে।মানে আন্তর্জাতিক ইলিশ বাঁচাও ও পর্যটন উৎসবের আয়োজন করে কুসুমের ফেরা সাহিত্য পত্রিকা ও ডায়মন্ড হারবার প্রেস ক্লাবের ১৩ তম বার্ষিক উৎসবে কল্লোলিত হল নিউ দিঘা পর্যটন কেন্দ্রের রাজপথ।

জাটকা বা খোকা ইলিশ বাঁচাতে হাতে ব্যানার নিয়ে হাঁটলেন পথচারী পর্যটক কবি ও সাহিত্যিকরা।স্লোগানে ধ্বনিত হল রাজপথ।মৎস্যজীবী দের সচেতন করা হল বন্ধুরা দয়া করে ছোট ইলিশ না ধরে বড়ো হতে দিন।তবে ধরুন এবং বাজারে আনুন।না হলে আগামী প্রজন্ম ইলিশ কে দেখবে জাদুঘরে।
পশ্চিম বঙ্গ সরকারের শিক্ষা রত্ন শিক্ষক থেকে শুরু করে মেঘালয়ের মানুষজন সামিল হলেন মিছিল ও আলোচনায়।ইলিশ মাছ বাঁচানোর দাবি নিয়ে।গারো পাহাড়ের পাদদেশ থেকে ব্যানার নিয়ে ছুটে এসেছেন সস্ত্রীক বিশ্বজিৎ নন্দী।ফলতার শিল্পবাণিজ্য কেন্দ্র থেকে সপরিবারে ছুটে গিয়েছেন শিক্ষা রত্ন প্রধান শিক্ষক ভোলানাথ প্রামাণিক।প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের পড়ানো কলেজের শিক্ষক কবি অবশেষ দাস থেকে শুরু করে মহারাজা নান্দকুমার কলেজের প্রফেসর অধ্যাপক ড, নির্মল বর্মণ, হুগলির উত্তরপাড়া থেকে ছুটে গেছেন ইকোনোমিক্সের শিক্ষক দেবাশিস মুখোপাধ্যায়, উত্তাপ বাড়াতে কোলাঘট তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে স্ত্রী নন্দিতা সিংহ মহাপত্রের স্বামী সুজন2মহাপাত্র।বাদ যাননি সব তীর্থ বারবার গঙ্গাসাগর একবারের ভূমিপুত্র তথা ব্রাহ্ম ন সমাজের প্রতিনিধি সমাজসেবী পীযুষকান্তি ত্রিপাঠী।পাহাড় সাগর থেকে আসা অতিথিদের উত্তরীয় পরিয়ে বরণ করে নিলেন আন্তর্জাতিক ইলিশ বাঁচাও উৎসবের সম্পাদক ও ডায়মন্ড হারবার প্রেস ক্লাবের সভাপতি সাকিল আহমেদ।

অনুষ্ঠান মঞ্চ তখন চাঁদের হাট।সাহিত্যিক সুকুমার রায় স্মৃতি পুরস্কার তুলে দেওয়া হল অধ্যাপক অবশেষ দাসের হাতে।কবি উৎপলকুমার বসু স্মৃতি পুরস্কারে সম্মানিত হলেন কবি দেবদুলাল পাঁজা(নাগসেন)প্রয়াত কবি ও প্রধান শিক্ষক তপন ত্রিপাঠী স্মৃতি পুরস্কার পেলেন ড,নির্মল বর্মণ।কুসুমের ফেরা পাঞ্চজন্য সৃজন সম্মান পেলেন পাঁচজন কবি সাহিত্যিক সম্পাদক ও প্রকাশক।তাঁরা হলেন কবি মঞ্জুলা বর,কবি ও সম্পাদক শান্তনু প্রধান, শিক্ষারত্ন শিক্ষক ও কবি পার্থসারথী বর,কবি নন্দিতা সিংহ মহাপাত্র, সাহিত্যিক দেবাশিস মুখোপাধ্যায় ও কবি অরূপ দত্ত।

নান্দনিক প্রকাশন সংস্থা থেকে প্রকাশিত কবি অবশেষ দাসের ছড়া গ্রন্থ ‘হাওয়ার নূপুর’ প্রকাশ করলেন সাংবাদিক ও কবি আবু রাইহান এবং সভাপতি পীযুষকান্তি ত্রিপাঠী।

কুসুমের ফেরা ইলিশ সম্মান পেলেন কবি বিদ্যুৎ লেখা ঘোষ, সামসাদ বেগম, হরিহর বৈদ্য, গৌতম হালদার ,আবু রাইহান,গৌতম হালদার প্রমুখ।
নাচে গানে কবিতায় আড্ডায় প্রতিবাদে মুখরিত হল দুদিনের আন্তর্জাতিক ইলিশ বাঁচাও ও পর্যটন উৎসব।

মেঘালয় থেকে আসা কবি ও সম্পাদক বিশ্বজিৎ নন্দী বললেন এই করোনা কালে লক ডাউনকে উপেক্ষা করে ছুটে এসেছি নিউ দিঘা পর্যটন কেন্দ্রে শুধু খোকা ইলিশ বাঁচাতে যাঁরা এগিয়ে এসেছেন তাঁদের উৎসাহিত করতে বিশেষ করে আয়োজক সংস্থা র কর্ণধার কবি ও সাংবাদিক সাকিল আহমেদের আহ্বান উপেক্ষা করার নয়।

বিজ্ঞাপন
Loading...

চাক‌রির খবর

ভ্রমণ

হেঁসেল

    জানা অজানা

    সাহিত্য / কবিতা

    সম্পাদকীয়


    ফেসবুক আপডেট